১১:৩৯ অপরাহ্ণ - বুধবার, ২১ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / আওয়ামী লীগ / সিমলা চুক্তির ভিত্তিতে ১৯৫ পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীর বিচার এবং লুন্ঠিত সম্পদ ফিরিয়ে আনার দাবী কেন্দ্রীয় ১৪ দলের

সিমলা চুক্তির ভিত্তিতে ১৯৫ পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীর বিচার এবং লুন্ঠিত সম্পদ ফিরিয়ে আনার দাবী কেন্দ্রীয় ১৪ দলের

nasim 29.11.15ঢাকা, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের এক বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় ১৪ দল সিমলা চুক্তির ভিত্তিতে ১৯৫ পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীর বিচার এবং মুক্তিযুদ্ধকালে বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানের লুন্ঠিত সম্পদ ফিরিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহবান জানিয়েছে।

আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘ যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী এবং আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহীদের ফাঁসির রায় কার্যকরকে কেন্দ্র করে ইসলামাবাদে নিযুক্ত বাংলাদেশী হাইকমিশনারকে ডেকে নিয়ে পাকিস্তান যে ঘৃন্য মিথাচার করেছে তার নিন্দা ও তীব্র প্রতিবাদ জানায় কেন্দ্রীয় ১৪ দল।
তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তান বাংলাদেশ থেকে যে সম্পদ লুন্ঠন করেছে ও সে সময় পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বাংলাদেশের যে সম্পদ ছিল তা ফিরিয়ে আনার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহবান জানানো হয়েছে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ১৯৭৪ সালে ভারত,বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যে স্বাক্ষরিত শিমলা চুক্তির ভিত্তিতে পাকিস্তানী ১৯৫ শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী সেনা কর্মকর্তাকে পাকিস্তানের হাতে প্রত্যার্পন করা হয়েছিল। সে চুক্তিতে পাকিস্তান যুদ্ধাপরাধী ১৯৫ সেনা কর্মকর্তার বিচারের প্রতিশ্রুতি দান করেছিল।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, পাকিস্তান প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ওই যুদ্ধাপরাধী সেনা কর্মকর্তাদের বিচার করেনি। তাই কেন্দ্রীয় ১৪ দল পাকিস্তানের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের প্রেক্ষিতে ১৯৫ পাকিস্তানী সেনা কর্মকর্তার বিচারের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহবান জানিয়েছে।

তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধ কালে পাকিস্তান যে যুদ্ধাপরাধ করেছে বাঙ্গালী জাতি হাজার বছর পরেও তা ভুলবে না। আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ধানের শীষ নিয়ে অংশ গ্রহন করায় বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে অভিনন্দন জানিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বিএনপি সন্ত্রাস ও নাশকতার পথ পরিহার করে নির্বাচনের রাজনীতিতে ফিরে এসেছে। দেশের গণতন্ত্রের জন্য এটা শুভ লক্ষণ।

মাঝপথ থেকে বিএনপিকে সরে না দাড়ানোর আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন শুরু না হতেই নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে তারা মিথ্যাচার শুরু করেছে।

বিএনপিকে মিথ্যাচারের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসার আহবান জানিয়ে নাসিম বলেন, মিথ্যাচারের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে এসে একটি ভাল নির্বাচন করার জন্য বিএনপিকে নির্বাচন কমিশনের সহায়তা করা উচিত।

নাসিম বলেন, দেশের তৃনমূল পর্যায়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের শরীক প্রতিটি দলের অবস্থানকে দৃঢ় করার জন্য আলাদাভাবে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে। তবে এ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী দলগুলোর প্রার্থীদের বিজয়ী করার জন্য সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়ার নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের নেতাদের সমন্নয়ে একটি টিম গঠন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, এ টিমটি বিভাগীয় ও জেলা পর্যায় থেকে পৌরসভা নির্বাচন মনিটরিং করবে এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দান করবে।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বিএনপি-জামায়াত পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যাতে কোন অন্তর্ঘাত মূলক কর্মকান্ড এবং নাশকতা চালাতে না পারে সেজন্য প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সতর্ক থাকার আহবান জানান।

বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া পৌরসভা নির্বাচনী প্রচারে নামার বিষয়ে জানতে চাইলে নাসিম বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে দেখলেই দেশের মানুষের সামনে দীর্ঘ তিনমাস তার নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে মারার কথা মনে হবে । এ জন্য দেশের মানুষ বেগম খালেদা জিয়া ও ধানের শীষকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখান করবে।

এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, ধানের শীষের দিন শেষ হয়ে গেছে এবং উন্নয়ন, সমৃদ্ধি এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতীক হিসেবে দেশের মানুষ নৌকাকেই গ্রহণ করবে।

এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি, এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক ডা. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া ডাবলু, শিল্প ও বানিজ্য সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, দফতর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম আমীন, সুজিত রায় নন্দী, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়া, ওয়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান এমপি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদের আহবায়ক রেজাউর রশিদ খানসহ কেন্দ্রীয় ১৪ দলের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents