৪:৫০ অপরাহ্ণ - বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / অর্থনীতি / শতভাগ পাটের বস্তার ব্যবহার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালিত হবে : মির্জা আজম

শতভাগ পাটের বস্তার ব্যবহার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালিত হবে : মির্জা আজম

mirza azom   08.12.15ঢাকা, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ মঙ্গলবার সারাদেশে বিকেল ৪টা পযর্ন্ত মোট ১০টি অভিযান পরিচালিত হয়। এতে মোট ২৩টি মামলা করে প্রায় ৪৬ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। সারা দেশের মতো রাজধানীর কলাপট্টি, যাত্রাবাড়ী ও বালুরমাঠ, পোস্তাগোলা বাজারের চালের আড়ৎগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) সহযোগিতায় এ অভিযান পরিচালনা করে ঢাকা জেলার নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মমিন উদ্দিন। এসময় একটি প্রতিষ্ঠানকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। এ সময় পাট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. মুয়াজ্জেম হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।

অভিযানকালে বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেন, ‘ছয়টি পণ্যে শতভাগ পাটের বস্তার ব্যবহার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালিত হবে।’

বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী এসময় ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, ‘শতভাগ সফলতা অর্জন না করা পর্যন্ত  মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হবে। এ আইন বাস্তবায়নের সময় ছিল ২০১৪ সাল। কিন্তু সব পক্ষের সাথে আলোচনা করে ২০১৫ সালের ৩০ নভেম্বর থেকে এ আইন বাস্তবায়নের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ আইন বাস্তবায়নে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তৎপর আছে। আপনারাও এগিয়ে আসুন পরিবেশবান্ধব এ আইনের বাস্তবায়নে।’

পাশাপাশি এ আইন পালনে ব্যবসায়ীসহ সকলের আন্তরিক সহযোগিতার জন্য দেশের সকল ব্যবসায়ীদের প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন মির্জা আজম।

তিনি আরো বলেন, ‘এ অভিযান মনিটরিংয়ের জন্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিবদের সমন্বয়ে ১০টি পৃথক মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে। এ আইন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আগামী দুই মাসে যে পরিমাণ পাটের ব্যাগ বা বস্তার প্রয়োজন হবে তা ইতোমধ্যে মজুদ আছে। এসব সরবরাহ করবে রাষ্ট্রায়াত্ব প্রতিষ্ঠান বিজেএসসি।’

প্রসঙ্গত, ‘কারাদণ্ড, অর্থদণ্ড, ব্যাংক ঋণ সুবিধা বন্ধ, লাইসেন্স বাতিল, আইআরসি বা ইআরসি বাতিলের বিধান রেখে ‘পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ বাস্তবায়নে সাঁড়াশি অভিযান চালু আছে। পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ এর ধারা ১৪ অনুযায়ী পাটের মোড়ক ব্যবহার না করলে অনূর্ধ্ব এক বছর কারাদণ্ড বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে। এ অপরাধ পুনঃসংগঠিত হলে সর্বোচ্চ দণ্ডের দ্বিগুণ দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে।

এছাড়া ছয়টি পণ্যে পাটের মোড়ক ব্যবহার না করলে ব্যাংকঋণ সুবিধা দেয়া হবে না। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে তফসিলি ব্যাংকগুলোকে এ বিষয়ে নির্দেশনা জারি করেছে। একইসঙ্গে চাতাল মিল মালিকরা পাটের ব্যাগ ব্যবহার না করলে খ্যাদ্য মন্ত্রণালয় তাদের লাইসেন্স বাতিল করবে।

পাশাপাশি আমদানি ও রপ্তানিকালে পাটের ব্যাগ ব্যবহার না করলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আইআরসি বা ইআরসি বাতিল করবে।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents