১:৪১ পূর্বাহ্ণ - মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / আওয়ামী লীগ / মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সতর্কতার সঙ্গে সরকার মোকাবেলা করছে : ওবায়দুল কাদের

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সতর্কতার সঙ্গে সরকার মোকাবেলা করছে : ওবায়দুল কাদের

ঢাকা, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ শুক্রবার সকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সতর্কতার সঙ্গে সরকার মোকাবেলা করছে।

তিনি বলেন, এই মুহুর্তে রোহিঙ্গাদের চাপ সামলানো বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ, যা খুব সতর্কতার সঙ্গে মোকাবেলা করছে সরকার।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে পুলিশপোস্টে হামলা চালায় সে দেশের একটি বিদ্রোহী গ্রুপ। এতে পুলিশ সদস্যসহ বহু রোহিঙ্গা হতাহত হন। এ ঘটনায় মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে অভিযানের নামে সাধারণ মানুষের ওপর হত্যা, ধর্ষণ ও বাড়িঘরে আগুনসহ নানা নির্যাতন চালায় দেশটির সেনাবাহিনী। তাদের নির্যাতন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশ অভিমুখে ঢল নামে রোহিঙ্গাদের। ইতোমধ্যে চার লাখের মতো রোহিঙ্গা বাংলাদেশের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে। এখনো হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে।

সম্প্রতি কক্সবাজারের উখিয়ায় শরণার্থী শিবির পরিদর্শনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিয়ানমার ফিরিয়ে না নেয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ অবস্থান করা রোহিঙ্গাদের পাশে থাকার কথা জানান। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে সরকার রোহিঙ্গাদের স্থান দিলেও এতো মানুষের বেশিদিন রাখা বাংলাদেশের জন্য সম্ভব নয়।

বিভিন্ন সমস্যা সত্ত্বেও বাংলাদেশ যেভাবে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিচ্ছে তার প্রশংসাও করছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে যেভাবে আশ্রয় দিয়েছে তাকে বিশ্ব সম্প্রদায় বাংলাদেশের পাশে আছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘প্রায় পাঁচ লাখের কাছাকাছি রোহিঙ্গা শরণার্থীর ঢল বাংলাদেশে এসেছে। রাখাইনে নতুন করে সেনা অভিযানের খবর আমরা পাচ্ছি। বন্যার ক্ষয়ক্ষতি এখনও আমরা কাটিয়ে উঠতে পারি নাই। এরপর বর্তমান সরকারের সময়ে আমাদের ওপর সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ আসলো রোহিঙ্গাদের নিয়ে। আমরা চ্যালেঞ্জগুলো ঠান্ডা মাথায় অতিক্রম করছি।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, রোহিঙ্গা সংকট কত দীর্ঘায়িত হবে আমরা তা জানি না। তবে আশার কথা হচ্ছে জাতিসংঘ, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ভারতসহ বিশ্বজনমত আমাদের পক্ষে। আমরা আশা করছি চীনকেও পাশে পাবো।

সেতুমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে চীন ও রাশিয়া ভেটো দিতে পারে বলে আমরা প্রথমে মনে করেছিলাম। কিন্তু এ প্রথমবার জাতিসংঘের নিরপত্তা পরিষদ মিয়ানমারের বিষয়ে বিবৃতি দেয়ার বিষয়ে ঐক্যমত হয়েছে। কেউ মিয়ানমারের পক্ষে কেউ অবস্থান নেন নাই। আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিবে বলেও আশাপ্রকাশ করেছেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমাদের একটা শক্তিশালী টিম চীন যাচ্ছে। সেখানে দ্বিপাক্ষিক বিষয় ছাড়াও অবশ্যই রোহিঙ্গা ইস্যুতে আলোচনা হবে।

এছাড়াও আগামী মাসে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবের আমন্ত্রণে একটি টিম ভারত যাবে। আগামী মাসে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের বাংলাদেশ সফরের পরেই এ সফর হবে বলে আমরা আশা করি।

দলের দুর্যোগ ও ত্রাণ উপকমিটি আগামী শীতকে সামনে রেখে ২০ হাজার কম্বল রোহিঙ্গাদের মধ্যে বিতরণ করবে বলেও জানান কাদের।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ,বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আবদুস সবুর, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, উপ-দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, কার্যনির্বাহী সদস্য মারুফা আক্তার পপি প্রমুখ।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

One comment

  1. হিন্দু মহাজোট হলো একটা সুযোগের সন্ধানী জোট। দেশের কোথাও কখনও যদিও হিন্দু বা অমুসলিম কোন সম্প্রদায়ের কোন ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি সম্পর্কে মুসলিমদের মাঝে কোন আলোচনা-সমালোচনা, গুঞ্জন কিছুই হয় না তখনই তাদের মনে অমুলক অসুরী আশংকা জেগে ওঠে এবং সন্দেহের তীরটা সরাসরি মুসলিমদের দিকে ছেড়ে দেয়। অথচ বাংলাদেশে তারা মুসলিমদের কোলে দিব্যি মহাসুখে শুয়ে আছে। হিন্দু মহাজোটের উচিৎ ভারতের মুসলিমদের দিকে তাকিয়ে শিক্ষা গ্রহন করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents