২:৩২ পূর্বাহ্ণ - বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / আন্তর্জাতিক / রাম রহিমের ডেরায় আইফেল টাওয়ার, তাজমহল সবই আছে

রাম রহিমের ডেরায় আইফেল টাওয়ার, তাজমহল সবই আছে

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ০৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ইং (দালান কোঠা ডটকম): ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের সিরসা শহর থেকে অনেকটাই দূরে জায়গাটা। বাইরে থেকে দেখে মনে হতে পারে, সহজে এখানে শহুরে সুযোগ-সুবিধা মিলবে না। কিন্তু উঁচু পাঁচিলের বাধা পেরিয়ে ভেতরে ঢুকলে এক নিমেষে সে ভুল ভেঙে যায়।

সাততারা হোটেল, স্কাইবারসহ রিসোর্ট, অভিজাত রেস্তোরাঁ, সুইমিং পুল, অত্যাধুনিক হাসপাতাল, আন্তর্জাতিক মানের স্কুল, হোস্টেল, সিনেমা হল, শপিং মল, ফুড কোর্ট, জিম, স্পা, নিজস্ব কৃষিজমি, বাজার — কী নেই সেখানে?

আইফেল টাওয়ার, ডিজনিল্যান্ডের আদলে গড়া স্থাপত্য রয়েছে ডেরার ভেতরে। সঙ্গে তাজমহলের ছাপও মেলে এখানকার ঘরবাড়ির ধাঁচে। ৮০০ একরের বিশাল জায়গা জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে ‘বাবা’ গুরমিত রাম রহিম সিং-এর একচ্ছত্র সাম্রাজ্য।

কেমন সে সাম্রাজ্য

রার দরজা খুলে ভেতরে ঢুকতেই কিছুটা পথ এগোতেই চোখে পড়ে এসএমজি হোটেল। যে কোনও সাততারা হোটেলকে হার মানাবে এমন তার অন্দরমহল। রিসেপশন, লবি থেকে শুরু করে হোটেলের প্রতিটা ঘর, বাথরুম— গোটাটাই দামি মার্বেলে মোড়া। প্রতিটি ঘরে ফ্ল্যাট স্ক্রিন টেলিভিশন, গদিমোড়া বিছানা। সঙ্গে অ্যাটাচড বাথরুম। হোটেলের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যাওয়ার জন্য রয়েছে ব্যাটারিচালিত গলফকার্ট। ভিভিআইপি ভক্তদের থাকার জন্যই এত আয়োজন।

হোটেল ছাড়িয়ে ডেরার অন্য প্রান্তে ঘুরে দেখতে দেখা গেল তাজমহলের আকারে তৈরি বিশাল বড় ভবন। রয়েছে প্যারিসের আইফেল টাওয়ারও। সবটাই ‘বাবা’র মনের মতো করে বানানো।

এ বার পা বাড়ানো গেল রেস্তোরাঁর দিকে। জলাশয়ের সঙ্গে এই লেভেলে সেই রেস্তোরাঁয় বসলে মনে হয় যেন ভাসমান কোনও জায়গায় বসে রয়েছেন।

৮০০ একরের একটা ছোটখাটো শহরে ছড়ানো রয়েছে এমনই বিলাসিতার যাবতীয় সুবিধা। স্বঘোষিত ধর্মগুরুর টানে বরাবরই ভক্তদের ভিড় লেগে রয়েছে।

রাম রহিমের দাবি, দেশ-বিদেশ মিলিয়ে তার ভক্তসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ কোটিতে।

ভক্তদের ভিড় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ফুলেফেঁপে উঠতে থাকে ডেরা। জাঁকজমকও বাড়তে থাকে ডেরা প্রধানের। রংচঙে পোশাকআশাক, দামি গয়নাগাটিতে সেজে ‘মেসেঞ্জার অব গড’ নামে দুটি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন তিনি। ডেরার ভেতরে প্রতিটি ভবনের বাইরে রয়েছে তার ছবি দেয়া বড় বড় হোর্ডিং। গোলাপি রঙের আধিক্য বেশি এখানকার প্রায় প্রতিটা বাড়িতেই।

তবে জোড়া ধর্ষণের দায়ে জেলযাত্রার পর প্রায় পরিত্যক্ত হয়ে পড়েছে গোটা ডেরা। পাঞ্জাব ও হরিয়ানা আদালতের নির্দেশে এখানে তল্লাশি শুরু হওয়ার পর আরও যেন থমথমে ডেরা সাচ্চা সওদা।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

<iframe width=”750″ height=”422″ src=”https://www.youtube.com/embed/-wR_pFHWu40″ frameborder=”0″ allowfullscreen></iframe>

 

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents