হেফাজত আমিরের প্রেস সেক্রেটারি মাওলানা মুনির আহমদ জানান, আল্লামা শফী এখন রাজধানীর গেন্ডারিয়ার বিশেষায়িত আসগর আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার চিকিৎসায় গঠিত আট সদস্যের মেডিকেল টিম বুধবার সকালে জানিয়েছে, বার্ধক্যজনিত শারীরিক দুর্বলতা ছাড়া আশঙ্কাজনক কোনো রোগ নেই। তিনি শিগগির সেরে উঠবেন বলে আশা করছেন চিকিৎসকরা।

আসগর আলী হাসপাতালের আইসিইউ’তে রেখে পেডিয়াট্রিক বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. জাবরুল এসএম হক-এর নেতৃত্বে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের আট সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করে চিকিৎসা চলছে হেফাজত আমিরের। বোর্ডের অপর সদস্যরা হলেন- অভ্যন্তরীণ মেডিসিন ও ক্রিটিক্যাল কেয়ার বিশেষজ্ঞ ডা. এআরএম নূরুজ্জামান, নেফ্রোলজি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. নূরুল ইসলাম, কিডনিরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. এমএ জুলকিফিল, আভ্যন্তরীণ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. সরোয়ার-ই-আলম, হৃদরোগ (ইন্টারভেনশনাল) বিশেষজ্ঞ ডা. মুহাম্মদ মিজানুর রহমনা, শ্বাসরোগ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. আসিফ মোজতবা মাহমুদ, নিউরো মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. নাজমুল হুদা বিপ্লব।

এর আগে গতকাল বিকালে দেশের প্রবীণ এই শীর্ষ আলেমকে চট্টগ্রাম থেকে বিশেষায়িত অ্যাম্বুলেন্স হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়। তাঁর জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চান হেফাজতে ইসলামের নেতারা।

আল্লামা শফীর বড়ছেলে মাওলানা মুহাম্মদ ইউসুফ জানান, সোমবার সকালে হৃদরোগ ও শাসকষ্ট বেড়ে গেলে তাকে দ্রুত চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতাল সি.এস.সি.আর এ ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়।

আল্লামা আহমদ শফী বেশ কিছুদিন যাবত অসুস্থ। তাঁর বয়স এখন ৯৮ বছর। কিছুদিন আগেও তিনি আইসিইউতে ছিলেন। মাঝে অবস্থার উন্নতি হলে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিকে, হেফাজত আমিরের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিতে আসগর আলী হাসপাতালে ভিড় করছেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। আল্লামা শফীর পরিবার ও হেফাজতে ইসলামের পক্ষ থেকে হাসপাতালে ভিড় না করতে সবার প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।