৩:১৯ পূর্বাহ্ণ - বুধবার, ২১ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / আন্তর্জাতিক / দীর্ঘ দিন সামরিক শাসনের নিগড় থেকে বেরিয়ে আজ গণতান্ত্রিক হাতে মিয়ানমার।

দীর্ঘ দিন সামরিক শাসনের নিগড় থেকে বেরিয়ে আজ গণতান্ত্রিক হাতে মিয়ানমার।

mianmar 11.11.15ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১১ নভেম্বর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): দীর্ঘ সামরিক শাসনের নিগড় থেকে বেরিয়ে আজ গণতান্ত্রিক মুক্তির পথে মিয়ানমার। দেশটির গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সুচির জয়ী হওয়াটা আপাতত তারই ইঙ্গিত দিচ্ছে।

নির্বাচনের আগেই বিশ্লেষকরা সুচির সম্ভাব্য জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী ছিলেন। যদিও পেছনের সকল আশা আকাঙ্ক্ষাকে পেছনে ফেলে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আসন পেয়েছে সুচির দল। গত ২৫ বছরের মধ্যে দেশটিতে এটিই ছিল প্রথম খোলামেলা নির্বাচন।

সামরিক সরকার প্রধান জেনারেল থেইন সেইন ক্ষমতা গ্রহনের পরপরই ২০১৪ সালে গণতান্ত্রিক নির্বাচন দেয়ার কথা বলেছিলেন, কিন্তু বিভিন্ন কারণে তা না দেয়া হলেও সর্বশেষ চলতি বছরে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আন্তর্জাতিক প্রতিনিধি না থাকলেও খোদ নেত্রী সুচিই স্বীকার করেছেন যে, এবারের নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে।

দেশটির সামরিক বাহিনীর মদদপুষ্ট ইউনিয়ন সলিডারিটি পার্টি (ইউএসডিপি) ২০১১ সাল থেকে ক্ষমতায় ছিল। সোমবার তারা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার আগেই নিজেদের পরাজয় স্বীকার করে নিয়েছিলেন। তবে ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (সুচির দল-এনএলডি) জয়ী হবার পর তারা দেশটির ডেল্টা শহরগুলো নিয়ে এক নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে। এখন তাদের একটাই প্রত্যাশা সুচি কি পারবে তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো, ডেল্টা শহরবাসীর দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক চেতনা বেড়ে উঠেছে উগ্রপন্থী বৌদ্ধ সংগঠনগুলোর উপর ভিত্তি করে। এমতাবস্থায় রোহিঙ্গা ইস্যুতে যেহেতু শান্তিতে নোবেলজয়ী নেত্রী কোনোদিন কথা বলেননি, তাই নির্বাচনে এনএলডি জিতলেও কট্টর বৌদ্ধ সংগঠনগুলোর উপর কর্তৃত্ব আরোপ করতে পারবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। যেহেতু আজ অবধি রোহিঙ্গা ইস্যুতে সুচিকে কোনোদিন বক্তব্য দিতে দেখা যায়নি।

হিনথাদা মিয়ানমারের একটি ডেল্টা শহর। ২০১০ সালে ইউএসডিপি প্রার্থী জয়ী হয়ে এই শহরের দায়িত্ব গ্রহন করেছিলেন। সেসময় তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মতো সেখানে কোন এনএলডি প্রার্থী ছিল না। তবে ইউএসডিপি প্রার্থী মনে করেন এই শহর তার জন্মস্থান হওয়ায় তিনি এই শহরের ভাল মন্দ সব দিক জানতেন। কিন্তু শহরবাসীর গলায় ইউএসডিপি প্রার্থী সম্পর্কে আছে ভিন্ন সুর। শহরবাসীর মতে, শহরের বাইরে থেকে কোনদিন শহরকে চেনা যায় না। স্থানীয় এক নারীর কাছ থেকে জানা যায়, তাদের প্রত্যাশা এই শহরে দ্রুত বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হবে। সেই সঙ্গে উন্নত করা হবে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ উন্নত যাতায়াত ব্যবস্থা। সেখানকার রাস্তাগুলোর এতটাই বেহাল অবস্থা যে, ১৬০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে পাঁচ ঘন্টা সময় লাগে। এছাড়াও নির্বাচনী প্রচারণার সময় তাদের যুবকদের যে চাকরির আশ্বাস দেয়া হয়েছিল তা এখনও পূরণ করা হয়নি।

তবে নাগরিক হতাশার ভিড়েও কেউ কেউ যেমন আশা জাগানিয়া কথা বলে যান। তেমনি সেখানকার এক কৃষক দম্পতি মনে করেন, সুচির এই জয় তাদের প্রতিনিয়ত জীবনের সঙ্গে সংগ্রাম করার হাত থেকে রক্ষা করবে। মিয়ানমার তুলনামূলক একটি বড় রাষ্ট্র হলেও এর অনেক ডেল্টা শহর এখনও নাগরিক সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত। যেমন ধরা যাক পায়াপন, লাবুত্তা, পাথেইন, মায়ুঙমার মতো প্রসিদ্ধ শহরগুলোর অবস্থা এখনও সাবেক বার্মা আমলের মতোই রয়ে গেছে।

গোটা দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গাল হিসেবে খ্যাত মাদক চোরাচালান রুটের সঙ্গে মিয়ানমারের বেশ কয়েকটি সুবিধাবঞ্চিত শহর জড়িয়ে আছে। দীর্ঘদিন পার্শ্ববর্তী দেশগুলো এবিষয়ে মিয়ানমার সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করলেও, সামরিক সরকারের অধীনে কোনো ব্যবস্থা গ্রহন করা যায়নি। কিন্তু এই নির্বাচনে সুচির দল জেতার পর সাধারণ মানুষের মাঝে আশার সঞ্চার হয়েছে তাদের নিজেদের উন্নয়নের ব্যাপারে।

এবার গিনথাদা শহর থেকে প্রথমবারের মত মনোনিত হয়েছে এনএলডিপি প্রার্থী খিন মাউঙ শি। তিনি একজন অবসরপাপ্ত স্কুল শিক্ষক। তবে হিনথাদা গ্রাম সম্পর্কে তারও তেমন ধারণা নেই বললেই চলে। আর হিনথাদার মত ডেল্টা শহরগুলোর ভাগ্য পরিবর্তনই সু চির দলের সবচেয় বড় চ্যালেঞ্জ।

উল্লেখ্য যে, দেশটিতে এই প্রথম সামরিক শাসনের পতন হয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হলো। কিন্তু এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, দেশটির শাসন এখনও প্রকারান্তে সামরিক শাসকের নিয়ন্ত্রনেই আছে। মিয়ানমারে গণতান্ত্রিক শাসন মানে চীনের সঙ্গে নতুন করে বৈরি সম্পর্ক রচনার রাস্তা সুগম করা। এমন অবস্থায় মিয়ানমার কি একই ভূসীমায় বৈরি রাষ্ট্রের সংখ্যা বাড়াবে, তাই এখন প্রশ্ন মিয়ানমারের রাজনৈতিক বিশ্লষকদের।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যায় জড়িত ছিল ১৫ জনের একটি দল

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি দূতাবাসের ভেতরে সাংবাদিক জামাল …

মার্কিন ফার্স্টলেডি মেলানিয়ার বিমানে ধোঁয়া, জরুরি অবতরণ

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): মার্কিন ফার্স্টলেডি মেলিনিয়া ট্রাম্পকে বহনকারী একটি বিমান …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents