৮:৪১ পূর্বাহ্ণ - সোমবার, ১৯ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / জরুরী সংবাদ / ভারতের সাথে প্রতিরক্ষা চুক্তি হলে বাংলাদেশের মানচিত্র থাকবে না : রিজভী

ভারতের সাথে প্রতিরক্ষা চুক্তি হলে বাংলাদেশের মানচিত্র থাকবে না : রিজভী

ঢাকা, ০২ এপ্রিল, ২০১৭ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ রবিবার দুপুরে রাজধানীতে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে দেশটির সঙ্গে প্রতিরক্ষা চুক্তি হলে বাংলাদেশের মানচিত্র থাকবে না। তবে সরকার এই চুক্তি করতে অতি উৎসাহী দাবি করে তিনি বলেছেন, এর প্রেক্ষাপট তৈরির জন্যই পরিকল্পিতভাব জঙ্গিবাদী তৎপরতা চালানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, জনমতকে উপেক্ষা করে প্রধানমন্ত্রীর সফরে ভারতের সঙ্গে সামরিক চুক্তি সই হতে যাচ্ছে। এমন চুক্তি হলে দেশের জনগণ সর্বশক্তি দিয়ে তা প্রতিহত করবে বলেও ঘোষণা দেন তিনি।

গত জুলাইয়ে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার পর থেকেই বেশ কিছু সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। সাম্প্রতিক সময়ে এই অভিযান জোরদার হয়েছে। গত মার্চ মাসে চট্টগ্রাম, সিলেট, মৌলভীবাজার ও কুমিল্লায় মোট সাতটি আস্তানার সন্ধান পায় পুলিশ।

বিএনপির নেতারা এসব অভিযান নিয়ে সমালোচনায় মুখর। ৭ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের আগে আগে কেন কীভাবে এতসব জঙ্গি আস্তানা খোঁজ পাওয়া যচ্ছে সে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির নেতারা। তবে এর মধ্যেই আবার সিলেটের আতিয়া মহলে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষে সেনাবাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

রিজভী বলেন, সরকার দেশে নির্মম, নিষ্ঠুর শাসন চালানোর কারণেই জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়েছে। তিনি বলেন, ‘মানুষকে নিজ গৃহ থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে অদৃশ্য করা, গুম, অপহরণ ও ক্রসফায়ার সহনীয় করা যদি সরকারের নীতি হয়, তাহলে উগ্রবাদী জঙ্গীগোষ্ঠী আধিপত্য বিস্তার করার জন্য রাষ্ট্র ও সমাজের নানা ফাঁক দিয়ে তার বিষাক্ত ছোবল দিতে উদ্যত হয়।’

জঙ্গিবাদ নিয়ে সরকারের বক্তব্যকে ‘নাটকীয়তাপূর্ণ’ আখ্যা দেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘এসব কথাবার্তা মানুষকে জিজ্ঞাসু করে তুলেছে।

বিএনপি নেতা বলেন, ‘আসলে কী ঘটে চলছে সেটি এখন জনগণের কাছে মোটেও স্পষ্ট নয়। জঙ্গিবাদের আস্তানার বিষয়টিও জনমনে নানা ধরণের সংশয়ের সৃষ্টি করেছে। সে জন্য জঙ্গিবাদ দমন নিয়ে সরকারের এতো অভিযানকে জনগণ সংশয়ের দৃষ্টিতে দেখছে। কারণ কোন চরমপন্থি জঙ্গিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হলে জনগণের মনে জঙ্গিবাদের তৎপরতা নিয়ে বিশ্বাস উৎপাদন হতো।’

রিজভী বলেন, ‘সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী মানুষের উদ্বেল অভিযাত্রাকে রুখতে তাদের জনগণের মধ্যে ভয় ও আতঙ্ক সৃষ্টি করার দরকার বলে মনে করে ক্ষমতাসীনরা। তাই ভীতির রাজ্য প্রতিষ্ঠা করার জন্য বন্দুকযুদ্ধের নামে ক্রসফায়ার চলমান রাখা হয়েছে।’

গত দুই সপ্তাহে ঝিনাইদহ, চট্টগ্রাম, রাজশাহী থেকে প্রায় ১০ জনের অধিক মানুষকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন রিজভী। তিনি বলেন, গত মার্চে মানবাধিকার সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী ক্রসফায়ারের নামে হত্যা করা হয় ২১ জনকে।

চট্টগ্রামে বাসা থেকে তুলে নিয়ে ছাত্রদল নেতা নুরুল আলম নুরুকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘ক্রসফায়ারের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যার গল্পকাহিনী এখন আর মানুষ বিশ্বাস করে না। সরকার সারাদেশকে যেভাবে চক্রান্তের বেড়াজালে বেঁধে গণতন্ত্র, ব্যক্তি অধিকার ও মানুষের মর্যাদাকে হরণ করেছে তাতে ক্রসফায়ারের ঘটনাকে মানুষ এখন বানানো গল্প বলে মনে করে।’

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents