৭:১০ অপরাহ্ণ - বুধবার, ১৪ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / অপরাধ / অ্যাপস ব্যবহারে প্রশ্ন সংগ্রহ করলেই ব্যবস্থা নেবে পুলিশ

অ্যাপস ব্যবহারে প্রশ্ন সংগ্রহ করলেই ব্যবস্থা নেবে পুলিশ

ঢাকা, ০১ এপ্রিল, ২০১৭ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ শনিবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তর বিভাগের উপকমিশনার শেখ নাজমুল আলম বলেছেন, জঙ্গিরা যে অ্যাপস ব্যবহার করে সেই একই অ্যাপস টেলিগ্রাম ব্যবহার করে ভূয়া প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টা করেছিল একটি জালিয়াত চক্র। আর তা করতে গিয়েই পুলিশের নজরদারির আওতায় চলে আসে তারা। গতকাল শুক্রবার বিকালে অভিযান চালিয়ে এই জালিয়াত চক্রের দুই সদস্যদেরকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর বিভাগের একটি দল।

শেখ নাজমুল আলম বলেন, গত ৩১ মার্চ শুক্রবার বিকাল পাঁচটার সময়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর বিভাগের একটি দল রাজধানীর মগবাজার নয়াটোলার মোড় থেকে অভিযান চালিয়ে ভূয়া প্রশ্নপত্র ফাঁসের চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন মো. শহিদুল ইসলাম এবং মো. গোলাম সারোয়ার সাজিদ। এ সময়ে তাদের কাছ থেকে মোবাইল ও সীম কার্ড জব্দ করা হয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের উপ কমিশনার বলেন, শহিদুল এবং সাজিদ মোবাইলসহ বিভিন্ন আইটি ডিভাইস ব্যবহার করে ফেইসবুককে, ফেইক আইডি, ম্যাসেঞ্জার গ্রুপ হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে বিভিন্ন কলেজের শিক্ষকের কাছ থেকে ভূয়া প্রশ্নপত্র সংগ্রহ করে। পরে পরীক্ষার্থীদের ফেইসবুক এবং ম্যাসেঞ্জার গ্রুপে শেয়ার করে অবৈধভাবে অর্থ আয় করে। তারা আলাদা আলাদা পরীক্ষার জন্য আলাদা আলাম ফেইসবুকে, ম্যাসেঞ্জারে গ্রুপ তৈরি করে।

গ্রেপ্তারকৃত শহিদুল এবং সাজিদ এসএসসি এবং এইচএসসি ২০১৭ সালের ম্যাসেঞ্জারে এইচএসসি  ২কে ১৭ এর অ্যাডমিন। গ্রেপ্তারকৃত গোলাম সারোয়ার সাজিদ হ্যালো ব্রাদার্সের অ্যাডমিন হিসেবে ফেইসবুকে এবং ম্যাসেঞ্জার গ্রুপে ১০০ ভাগ প্রশ্ন কমন দেবে বলে বিজ্ঞাপন দেয়। এবং এইসব ভূয়া প্রশ্নপত্র ফাঁসের জন্য প্রতিশিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এক থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত নিয়ে থাকে।

শেখ নাজমুল আলম বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে আগামী বছর থেকে কোন শিক্ষার্থী অবৈধভাবে প্রশ্নপত্র সংগ্রহ করে পরীক্ষা দেওয়ার চেষ্টা করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন এই গোয়েন্দা কর্মকর্তা।

এছাড়াও রাজধানীর রামপুরা থানার পশ্চিম উলন জমিদার গলির রাস্তার উপর থেকে হজরত আলী নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর বিভাগ। এ সময়ে তার কাছ থেকে সাড়ে চারশগ্রাম হেরোইন উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত হজরত আলী দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের সীমান্তবর্তী এলাকা চাপাইনবাবগঞ্জ এবং রাজশাহীর গোদাগাড়ি এলাকা থেকে মাদকদ্রব্য কিনে ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করে বলে জানান শেখ নাজমুল আলম।

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পশ্চিম বিভাগের উপকমিশনার মো. সাজ্জাদুর রহমান, পূর্ব বিভাগের উপকমিশনার খোন্দকার নুরুননবী, জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার উপ কমিশনার মাসুদুর রহমান, সিরিয়াস ক্রাইম বিভাগের উপকমিশনার মোদাসসের হোসেন এবং ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের দক্ষিণ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents