স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাবুল আক্তারের বিরুদ্ধে আমাদের কাছে এখনও সুনির্দিষ্ট কোনো প্রমাণ নেই। প্রমাণ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অপরাধী সরকারি চাকরিজীবী কিংবা পুলিশ যেই হোক অপরাধ করলে কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।’

২০১৬ সালের ৫ জুন বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। সম্প্রতি বাবুল আক্তারের বিরুদ্ধে ঝিনাইদহের এসআই আকরাম হত্যারও অভিযোগ এনেছে তার কথিত বান্ধবীর শ্বশুরবাড়ির পরিবারের সদস্যরা।

তবে পুলিশ বলছে, তদন্তের এ পর্যায়ে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে বাবুলের জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।