১২:০৬ পূর্বাহ্ণ - রবিবার, ১৮ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / আওয়ামী লীগ / পদ্মা সেতু ইস্যুতে খালেদা জিয়ার লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করা উচিত : হাছান মাহমুদ

পদ্মা সেতু ইস্যুতে খালেদা জিয়ার লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করা উচিত : হাছান মাহমুদ

ঢাকা, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে বংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত ‘শেখ হাসিনার সরকার উন্নয়নের মহাসড়কে, পদ্মার ঢেউ বিশ্বব্যাংকে, স্বাধীনতাবিরোধী চক্র ষড়যন্ত্রের চরিত্রে করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, সরকারের লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করা উচিত। সেই প্রকল্পে দুর্নীতি হয়নি, এটা যে ষড়যন্ত্র ছিল তা কানাডার আদালতে ইতোমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে। এজন্য লজ্জা থাকলে বিএনপি চেয়ারপারসনের পদ থেকে খালেদা জিয়ার পদত্যাগ করা উচিত।

দেশের সবচেয়ে বড় পদ্মা সেতু প্রকল্পে ঋণ দিতে গিয়ে বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলেছিল। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে বিশ্বব্যাংক ১২০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি বাতিল করে। বৃহৎ এ প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের নেতৃত্বে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি), ইসলামী ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি) ও জাপানি সহযোগী সংস্থা জাইকাও অর্থায়নে রাজি হয়েছিল। কিন্তু বিশ্বব্যাংকের ঋণ প্রত্যাহারের ফলে তারাও সরে আসে। পরে নিজস্ব অর্থায়নে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন শুরু করে বাংলাদেশ সরকার।

দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে সরকার নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্পটি চালিয়ে গেলেও কানাডায় চলছিল দুর্নীতি ষড়যন্ত্রের বিচার। গত শুক্রবার কানাডার আদালত এই বিচারের রায় ঘোষণা করে। রায়ে পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ফলে কানাডার আদালত মামলাটিকে ভিত্তিহীন বলে রায় দিয়েছে।

খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ এনে অর্থায়ন বন্ধ হলে খালেদা জিয়া বলেছিলেন, সরকারের লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করতে। কিন্তু আজ প্রমাণ হয়েছে পদ্মা সেতুতে কোনো দুর্নীতি হয়নি, সব ছিল ষড়যন্ত্র। তাই খালেদা জিয়ার লজ্জা থাকলে চেয়ারপারসনের পদ থেকে পদত্যাগ করুন।’

যারা এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত তাদের রিমান্ডে নেয়ার দাবি করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘২০০১ সালে পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন শেখ হাসিনা। এরপর বিএনপি ও আরও একটি সরকার দুই বছর ছিল, কিন্তু পদ্মা সেতুর কাজের কোনো অগ্রগতি হয়নি। আবার কাজ শুরু হলে চক্রান্তকারীরা ষড়যন্ত্র শুরু করে। বিএনপি ষড়যন্ত্রকারীদের বাতাসে দিয়েছে।’

নির্বাচন কমিশন বিতর্কিত করার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে বিএনপি এখন সহায়ক সরকারের দাবি করছে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপির নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে তাদের সমালোচনা হালে পানি না পাওয়ায়, এখন তারা সহায়ক সরকারের দাবি তুলছে।’

পৃথিবীর অন্যান্য গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচনকালীন সরকার যেভাবে হয় সেভাবেই বাংলাদেশের সরকার হবে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সাংবিধানিকভাবে তারা দায়িত্ব পালন করবে। সেই সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন শেখ হাসিনা এবং তার অধীনেই বাংলাদেশের নির্বাচন হবে, এর কোনো ব্যত্যয় হবে না।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘নির্বাচন করে নির্বাচন কমিশন, তাদেরকে সহায়তা করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আর নির্বাচনকালীন সরকার শুধু রুটিন কাজগুলো করে। সুতরাং বিএনপির অন্যায় আবদার কখনও মানা হবে না।’

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents