৫:৫৯ পূর্বাহ্ণ - শনিবার, ১৭ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / আন্তর্জাতিক / নিউজিল্যান্ডের সমুদ্র সৈকতে সঙ্গে প্রায় ৩০০ তিমির মৃত্যু হয়েছে

নিউজিল্যান্ডের সমুদ্র সৈকতে সঙ্গে প্রায় ৩০০ তিমির মৃত্যু হয়েছে

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): এক সঙ্গে প্রায় ৪০০ তিমি আটকে গেল নিউজিল্যান্ডের গোল্ডেন বে সমুদ্র সৈকতে। যার মধ্যে প্রায় ৩০০ তিমিকে ইতিমধ্যেই মৃত ঘোষণা করা হয়েছে। বাঁচানোর চেষ্টা চলছে বাকিদের। নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে এই নিয়ে তৃতীয় বার এ রকম ঘটনা ঘটল। এতগুলো তিমির মৃত্যুতে উদ্বিগ্ন প্রাণী বিজ্ঞানীরা।

নিউজিল্যান্ডে এ দৃশ্য অবশ্য একেবারে বিরল নয়। প্রতি বছরই নিউজিল্যান্ডের ওই সমুদ্র সৈকতে একাধিক তিমি আটকে পড়ে। গোল্ডেন বে’র আশেপাশের বাসিন্দাদের তাই তিমি উদ্ধারের প্রশিক্ষণও দেয়া হয়। কিন্তু এতগুলো তিমি এক সঙ্গে আটকে পড়ার ঘটনা এর আগে খুব একটা ঘটেনি। এর আগে মাত্র দু’বার এর থেকে বেশি তিমি ওঠার ঘটনা ঘটেছে। ১৯১৮ সালে এই সমুদ্র সৈকতেই এক হাজার তিমি উঠে এসেছিল। তারপর ১৯৮৫ সালে অকল্যান্ডে ৪৫০টি তিমি উঠেছিল।

প্রাণী সংরক্ষণ দপ্তরের রেঞ্জার কাথ ইনউড জানান, বৃহস্পতিবার রাত থেকেই গোল্ডেন বে সমুদ্রসৈকতে এক সঙ্গে অনেকগুলো তিমিকে ঘোরাফেরা করতে দেখা গিয়েছিল। এমন কিছু ঘটতে পারে বলে আশংকা করা হয়েছিল তখন থেকেই। সেই মতো উদ্ধারকারী দলও তৈরি ছিল। শুক্রবার দেখা যায়, প্রায় ৪০০ তিমি সমুদ্রসৈকতে পড়ে রয়েছে। এ দিন ভোর থেকেই উদ্ধারকারী দল কাজ করতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই প্রায় ১০০ তিমিকে গভীর জলে পাঠানোও হয়েছে। কয়েক ঘণ্টা পর যার মধ্যে আবার ৫০টি তিমি ফিরে এসেছে। অনেক চেষ্টা করেও বাঁচানো যায়নি আটকে পড়া প্রায় ৩০০ তিমিকে।

কেন এমন হয়?

বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, তিমি বা ডলফিনের মধ্যেই এই ধরনের ব্যবহার বেশি লক্ষ্য করা যায়। এমন ব্যবহারের কোনও নির্দিষ্ট কারণ সম্বন্ধে এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। তবে এর পিছনে বেশ কতগুলো সম্ভাব্য কারণ সামনে এনেছেন তারা। মাঝসমুদ্র থেকে তুলনামূলক কম গভীরতায় তিমি সন্তান প্রসব করতে আসে। কিন্তু তুলনায় বেশি অগভীর জলে চলে এলে আটকে যায়। একই রকমভাবে বয়স হয়ে গেলে অসুস্থ বা দুর্বল তিমিও সৈকতে এসে আটকে যায়।

তবে এই দুই ক্ষেত্রেই এতগুলো তিমির একসঙ্গে আটকে পড়াটা অসম্ভব। নিউজিল্যান্ডের এই ঘটনার পিছনে দিক নির্ধারণের ভুল বা একের বিপদে অনেকের ঝাঁপিয়ে পড়া দায়ি থাকতে পারে বলে বিজ্ঞানীদের ধারণা।

কী রকম?

অনেক সময়ই এক স্থান থেকে আর এক স্থানে যাওয়ার জন্য তিমি ভূচুম্বকীয় রেখা অনুসরণ করে থাকে। সেই রেখা সমুদ্র সৈকত বরাবর হলে তিমির দল সেখানে আটকে পড়ে। তিমির এই দলটির ক্ষেত্রেও এটা হতে পারে। অথবা এটা স্বজাতির বিপদে ঝাঁপিয়ে পড়ার ফলও হতে পারে। কারণ, প্রাণী বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, তিমি কোনও কারণে সমুদ্র সৈকতে আটকে পড়লে সাহায্যের জন্য বার্তা পাঠায়। যা শুনে অন্য তিমিরাও এগিয়ে আসে। সূত্র: আনন্দবাজার ও বিবিসি

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents