২:২৮ পূর্বাহ্ণ - বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / অন্যান্য দলের খবর / যে দেশ শিল্পে উন্নয়ন করেছে তারাই কয়লা থেকে বিদ্যুৎ ‍উৎপাদন করছে : ডিসিসিআই

যে দেশ শিল্পে উন্নয়ন করেছে তারাই কয়লা থেকে বিদ্যুৎ ‍উৎপাদন করছে : ডিসিসিআই

ঢাকা, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ বৃহস্পতিবার মতিঝিলে ডিসিসিআই ভবনে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ-ডিসিসিআই এর এক অনুষ্ঠানে সংগঠনের সভাপতি আবুল কাশেম খান বলেছেন, বাগেরহাটের রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই এই ধরনের বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে সরকারের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘যে দেশ শিল্পে উন্নয়ন করেছে তারাই কয়লা থেকে বিদ্যুৎ ‍উৎপাদন করছে।’ সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আবুল কাশেম খান বলেন, ‘চায়না ডেভলপমেন্টের পর কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করছে। কিন্তু এর আগে তারা ৪০ বছর এটা ব্যবহার করেছে। আমরা তো এখন ডেভলপমেন্ট শুরুই করিনি।’

‘তাছাড়া কোল (কয়লা)টেকনোলজি এখন আনেক উন্নত হয়েছে। ব্রিটিশ, চায়না, জার্মানির ইন্ডাস্ট্রি রেভুলিয়েশ হয়েছে কোল এর উপর। তাই আমরা কেন শুরু করবো না?’। তিনি বলেন, ‘পরিবেশের কী ক্ষতি হবে, সেটা ভালো করে করে বলতে হবে। পরিবেশের ক্ষতির মাত্রাটা কী সেটা আমাদের নিরূপণ করতে হবে। কস্ট অ্যান্ড বেনিফিট চিন্তা করতে হবে আমাদের। আমাদের দেশকে উন্নতি করতে হবে।’

ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘প্রাইভেট সেক্টরে প্রচুর অ্যানার্জি লাগবে সে অ্যানার্জি কোথা থেকে আসবে? আমাদের জিনিসটা বুঝতে হবে। প্লান করাতো সহজ, কিন্তু সেটাতো বাস্তবায়ন করতে হবে।’

ব্যবসায়ী নেতা বলেন, ‘সেমিনারে একজন বলেছেন নবায়নযোগ্য জ্বালানির কথা, কিন্তু এটা দিয়ে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়, ৮ থেকে ৯ শতাংশ জিডিপির প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব নয়।’ তিনি বলেন, ‘আমরা এখন উন্নয়নের দিকে যাচ্ছি সেখানে নবায়নযোগ্য জ্বালানি দিয়ে কী হবে? হয়তো ছোট সেক্টরে ও যেখানে বিদ্যুৎ নেই সেই এলাকার চাহিদা কিছুটা মেটানো য়ায়।’

চায়না কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে সরে এসেছে- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আবুল কাশেম খান বলেন, ‘তারা অর্থনিতিক শক্তিশালী হয়ে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে সরে আসছে। আমরা এখনও সেই পর্যায়ে যাইনি। তাই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রয়োজন আছে।’ তিনি বলেন, ‘প্রতিটি শিল্পোন্নত দেশই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছে। আমরা কেন করবো না। আমাদের ক্ষতি ও সুবিধা বিবেচনা করতে হবে।’

ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘সাত শতাংশ প্রবৃদ্ধি, মাথাপিছু আয় এক হাজার ৪৬৬ ডলার, রপ্তানি আয় ৩৪.২৪ বিলিয়ন ডলার, বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ১৫ হাজার ৫৩৯ মেগাওয়াট এবং বৈদেশিক মূদ্রার রিজার্ভ-এর পরিমাণ ৩২.০৯ বিলিয়ন ডলার দেশের সমষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতার পরিচয় বহন করে। তবে অবকাঠামোতে আমাদের বিনিয়োগ মাত্র দুই দশমিক ৮৫ শতাংশ। বেসরকারি বিনিয়োগ ২২শতাংশ, ট্যাক্স জিডিপির মাত্র ১০শতাংশ, যা দেশের কাঙ্ক্ষিত বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে অন্তরায়।

ব্যবসায়ী নেতা বলেন, বৈদেশিক বিনিয়োগ কিছুটা বাড়লেও বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার অনুযায়ী এফডিআইর পরিমাণ এখনও ভারত, পাকিস্তান, জাপান এবং ভিয়েতনামের তুলনায় অনেক কম।

অবকাঠামো উন্নয়নে জোর দিয়ে আবুল কাশেম খান বলেন, বৈদেশিক বিনিয়োগ বৃদ্ধি এবং শিল্পায়নের লক্ষ্যে অবকাঠামো উন্নয়নে সবচেয়ে বেশি জোর দিতে হবে। নিরাপদ যোগাযোগ মাধ্যম হিসাবে রেল এবং নৌ যোগাযোগ অবকাঠামোখাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

সরকারের বিকেন্দ্রীকরণ করে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা ঢাকা থেকে সরিয়ে নেয়ার তাগিদ দেন আবুল কাশেম খান। তিনি বলেন, ‘সঠিক পরিকল্পনার অভাবে এবং মাত্রারিক্ত জনসংখ্যার চাপের কারণে ঢাকা শহরে মানুষ স্বাভাবিক জীবন অতিবাহিত করতে পারছে না। তাই ঢাকাভিত্তিক প্রশাসনের বিকেন্দ্রীকরণ জরুরি। ঢাকামুখী জনস্রোত বন্ধ করতে অন্যান্য জেলা শহরেও সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে হবে।’

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents