৪:২৪ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / অন্যান্য দলের খবর / খান এ সবুর ও শাহ আজিজের নামে স্থাপনার নাম প্রত্যাহারে সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশ দিলো হাইকোর্ট

খান এ সবুর ও শাহ আজিজের নামে স্থাপনার নাম প্রত্যাহারে সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশ দিলো হাইকোর্ট

high-courtঢাকা, ০৩ নভেম্বর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): খুলনার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ‘যশোর রোড’ থেকে রাজাকার খান এ সবুরের নাম এবং ও কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘অডিটোরিয়াম’ থেকে শাহ আজিজুর রহমানের নাম এক সপ্তাহের মধ্যে প্রত্যাহারে সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাবিরোধী এ দুই জনের নামে স্থাপনার নাম পরিবর্তনের আদেশ বাস্তবায়ন করে তা আগামী ৯ নভেম্বরের মধ্যে এফিডেভিড আকারে আদালতকে জানাতে বলা হয়েছে।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ আজ এ আদেশ দেয়। স্বাধীনতাবিরোধী এ দুইজনের নামে স্থপনার নাম প্রত্যাহারে আদালতের ইতোপূর্বের দেয়া নির্দেশনা বাস্তবায়নে নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও তা কার্যকর না করায় একটি আবেদন করা হয়। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার একে রাশেদুল হক এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।

বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধীদের নামে স্থাপনা নামকরণ প্রত্যাহারের নির্দেশনা চেয়ে ২০১২ সালে হাইকোর্টে একটি রিট করেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন ও লেখত-গবেষক শাহরিয়ার কবির। ওই রিটের প্রেক্ষিতে একই বছরের ১৪ মে ওই দুই স্থাপনা থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের নাম প্রত্যাহারের আদেশ দেওয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘদিন এ নির্দেশ বাস্তবায়ন না করায় পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেনসহ গত ১৮ আগস্ট বিষয়টি আদালতে উপস্থাপন করা হয়। পরে গত ২৫ আগস্ট আদালত আদেশ বাস্তবায়নে নির্দেশ দেয়। ওই দিন আদেশে আদালত ‘খান সবুর’ রোডের নাম পরিবর্তন করে ‘যশোর রোড’ এবং কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহ আজিজুর রহমান অডিটোরিয়াম নাম পরিবর্তন করতে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যকে নির্দেশ দেয়া হয়। ওই আদেশ গৃহায়ন সচিব, শিক্ষা সচিব, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যকে বাস্তবায়ন করতে বলা হয়।

আবেদনকারী পক্ষে আইনজীবী ব্যারিস্টার একে রাশেদুল হক আজ সাংবাদিকদের বলেন, দুটি স্থাপনা থেকে চিহ্নিত রাজাকারের নাম পরিবর্তন করে আদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে। এর আগে কয়েকবার আদেশ দিলেও সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ হাইকোর্টের আদেশ পাননি মর্মে আদালতে জানালে আদালত আজ (মঙ্গলবার) পুনরায় সাত দিনের মধ্যে আদেশ বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দিয়েছে। বিশেষ বার্তাবাহকের মাধ্যমে আদালতের এ আদেশ সংশ্লিষ্টদের কাছে পৌছাঁনো হবে বলে জানান তিনি।

রিট পিটিশনে বলা হয়, মুসলিম লীগের নেতা খান এ সবুর পাকিস্তান আমলে আইয়ুব খানের মন্ত্রী ছিলেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দালাল আইনে বিচার শুরুর সময় প্রকাশিত ছয়শ’ স্বাধীনতাবিরোধী অপরাধীর তালিকাতে তার নাম ছিল। অন্যদিকে জিয়াউর রহমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শাহ আজিজুর রহমান ষাটের দশকে মুসলীম লীগের নেতা ছিলেন। স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকার কারণে ১৯৭২ সালে তাকেও দালাল আইনে গ্রেফতার করা হয়েছিল।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents