৯:৩৭ অপরাহ্ণ - বুধবার, ২১ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / অর্থনীতি / ট্রানজিট সুবিধার আওতায় ভারতীয় প্রথম চালান আখাউড়া দিয়ে আগরতলায় প্রবেশ

ট্রানজিট সুবিধার আওতায় ভারতীয় প্রথম চালান আখাউড়া দিয়ে আগরতলায় প্রবেশ

akhaura 03.11.15আখাউড়া (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া), ০৩ নভেম্বর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে আখাউড়া স্থলবন্দর সীমান্ত পথে ট্রানজিট সুবিধার আওতায় ভারতীয় ভোডা ফোনের ইলেক্ট্রনিকস সরঞ্জাম ভর্তি (কাভার্ড ভ্যান) ট্রাকের প্রথম চালান আখাউড়া হয়ে ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলায় প্রবেশ করেছে।

এ সময় ত্রিপুরার আগরতলা স্থলবন্দরের কাস্টমস্ কর্মকর্তা বাণিক বত্ত চক্রবর্তী আখাউড়া স্থলবন্দর কাস্টমসের সহকারী কমিশনার (এসি) মিহির কুমার চাকমার কাছ থেকে চালানটি বুঝে নেন।

ট্রানজিট সুবিধার আওতায় পরিক্ষামূলক এই ভারতীয় পণ্য সামগ্রী নিয়ে ট্রাকটি রবিবার বিকালে কলকাতা থেকে বেনাপোল স্থলবন্দরে আসে। পরে এটি সোমবার সকাল সাড়ে ৮টায় বেনাপোল থেকে আখাউড়ার উদ্দ্যেশে ছেড়ে আসে।

আখাউড়া স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, সার্ক জোটের চারটি দেশ – বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান এবং নেপালের মধ্যে পণ্যবাহী যান চলাচলের জন্য সম্প্রতি সম্পাদিত (বিবিআইএন)’র চুক্তির আওতায় পরিক্ষামূলক যান চলাচল শুরু হয়েছে।

এ চুক্তির আওতায় পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা থেকে বেনাপোল হয়ে আখাউড়া দিয়ে পণ্যবাহী এ ট্রাকের চালান আগরতলা গেল।  ট্রাকটি পরিচালনা করছে আন্তর্জাতিক কুড়িয়ার সংস্থা ডি এইচ এল। এতে যে ইলেক্ট্রনিক পণ্য আছে তা যাবে পূর্বোত্তর ভারতের গৌহাটিতে।

ডিএইচএল গ্লোবাল ফরওয়াডিং কোম্পানির সিনিয়র অফিসার মো. ফিরোজ জাহাঙ্গীর জানান, প্রায় ত্রিশ লাখ টাকা মূল্যের ভোডা ফোনের ৭ প্যাকেজ ইলেক্ট্রনিকস সরঞ্জাম নিয়ে ভারতীয় ট্রাক (ডব্লিউবি -১১বি-৯৫১৯) আগরতলা হয়ে গৌহাটি যাবে। এর আগে বাটা সু-কোম্পানীর ১১৬ প্যাকেট পণ্য বেনাপোল স্থলবন্দরে আনলোড করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পণ্যবাহী যান নিয়ে কলকাতা থেকে ত্রিপুরায় আসতে যেখানে ৮দিন সময় লাগত সেখানে মাত্র তিন দিনের মধ্যে ত্রিপুরায় চলে আসছি। বাংলাদেশের ভূখন্ড ব্যবহার করে এ পথে উত্তর-পূর্বাঞ্চলে পণ্য পরিবহণের ক্ষেত্রে দূরত্ব কমে ৬৪০ কিলোমিটারে নেমে এলো, যার জন্য আগে পাড়ি দিতে হতো ১’হাজার ৫৫০ কিলোমিটার পথ।

তিনি আরও বলেন, শুধু ত্রিপুরারাজ্যের আগরতলা নয়, ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলও এই যান চলাচলের ফলে উপকৃত হবে। তবে ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার সুলতান পুর থেকে আখাউড়া স্থলবন্দর পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার সড়ক সরু এবং খানাখন্দে ভরা। তাছাড়া এ সড়ক পথে মাঝে মধ্যেই রেলওয়ের অনেক ট্রাফিক বিহীন ঝুঁকিপূর্ণ রেলক্রসিং রয়েছে। এসব এলাকায় ট্রাক চলাচলের অনেক সমস্যা হয়েছে।

পণ্যবাহী  ট্রাকের সঙ্গে থাকা ভারতীয় কাস্টমস্ অফিসার মলাই রঞ্জন পাইন জানান, চার দেশের মধ্যে চুক্তির আওতাতেই এই যান চলাচল শুরু হলো।

তিনি বলেন, এটা কোনো দ্বিপাক্ষিক চুক্তি নয়। সার্কের আওতায় আঞ্চলিক যোগাযোগের এ উদ্যোগে বাংলাদেশ শামিল হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে ভারত খুব সহযোগিতা পাচ্ছে। সেজন্য তিনি বাংলাদেশে সরকারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents