১০:৪৩ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / অন্যান্য দলের খবর / ভোট কারচুপি, সন্ত্রাস, ব্যালট বাক্স ছিনতাই, ভোটকেন্দ্র দখল রোধে ৭ দফা প্রস্তাব নাজমুল হুদার

ভোট কারচুপি, সন্ত্রাস, ব্যালট বাক্স ছিনতাই, ভোটকেন্দ্র দখল রোধে ৭ দফা প্রস্তাব নাজমুল হুদার

ঢাকা, ২৩ নভেম্বর, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে নাজমুল হুদা ভোট কারচুপি, সন্ত্রাস, ব্যালট বাক্স ছিনতাই, ভোটকেন্দ্র দখল রোধে সাত দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আবার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সূত্র দিয়েছেন বিএনপির সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় জোটের (বিএনএ) চেয়ারম্যান নাজমুল হুদা। নির্বাচন নিয়ে সাত দফা প্রস্তাব দিয়ে তিনি বলেন, এগুলো মেনে নিলে শেখ হাসিনা পুনরায় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন।

প্রস্তাবগুলোর মধ্যে রয়েছে, জাতীয় নির্বাচনের আগে হালনাগাদ করা ভোটার তালিকা প্রার্থীদের হাতে তুলে দেয়া, জালভোট ঠেকাতে ভোটার পরিচয়পত্র বা পাসপোর্ট দেয়া, নির্বাচনী ব্যয় সংকোচনে নির্বাচনী ক্যাম্প স্থাপন না করা, নির্বাচনী প্রচারণা দশ দিন করা প্রভৃতি।

বিএনপি নেত্রী নয়, তার প্রস্তাব মানাই সরকারের জন্য লাভজনক হবে দাবি করে নাজমুল হুদা বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আজ আমার এই প্রস্তাব মেনে নিয়ে বিশেষ করে ভোটার তালিকা হালনাগাদকরণ এবং ভোটার পরিচয়পত্র হিসেবে পাসপোর্ট প্রবর্তনের প্রস্তাব মেনে নিয়ে একটি জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত করেন, আমরা হলফ করে বলতে পারি, জননেত্রী শেখ হাসিনাই পুনরায় নির্বাচিত হয়ে দেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন।’

নাজমুল হুদা বলেন, ‘বলে রাখা ভালো, যারা মনে করেন এখনই জাতীয় নির্বাচন দিলে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হবে, তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন। কারণ আমি মনে করি, একের পর এক ভুল সিদ্ধান্ত বহুক্ষেত্রে সিদ্ধান্তহীনতার কারণে এক কালের জনপ্রিয় দল জনগণের আস্থা হারিয়েছে এবং জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা সম্পূর্ণ উবে গেছে।’

বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন স্থায়ী কমিটির সদস্য নাজমুল হুদা ১৯৯১ ও ২০০১ সালে বিএনপির মন্ত্রিসভায় গুরুত্বপূর্ণ পদ পান। ১৯৯১ সালে তথ্যমন্ত্রী এবং পরের সরকারের আমলে যোগাযোগমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা এই নেতা সে সময় আওয়ামী লীগকে নিয়ে নানা আক্রমণাত্মক বক্তব্য দিয়ে আলোচিত হন।

তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বিএনপি থেকে বের হয়ে আলাদা রাজনৈতিক দল গঠন করেন নাজমুল হুদা। এরপর নিজ হাতে গড়া দল থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর বিএনপিতে ফিরে যান তিনি। পরে আবার দল থেকে বের হয়ে গঠন করেন নতুন জোট। বর্তমানে ক্ষমতাসীন ১৪ দলের কর্মসূচিতে সমর্থন জানিয়েছেন এই রাজনীতিবিদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে নাজমুল হুদা বলেন, ‘একটি অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করতে শেখ হাসিনার এখন কোনো দুর্বলতা নেই।’ নির্বাচন নিয়ে কারও সঙ্গে আলোচনার প্রয়োজন আছে বলেও তিনি মনে করেন না নাজমুল হুদা। বলেন, ‘ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনেই নির্বাচন হতে হবে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের বিষয়ে নাজমুল হুদা বলেন, ‘বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারই হবে তার (খালেদা জিয়া) ভাষায় সহায়ক সরকার।’ সৌজন্যে ঢাকাটাইমস

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents