১২:০৪ পূর্বাহ্ণ - মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / জরুরী সংবাদ / যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতেই গুপ্ত খুন, তাদের বিচার বিনষ্ট করতেই এসব হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতেই গুপ্ত খুন, তাদের বিচার বিনষ্ট করতেই এসব হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

hasina6   02.11.15ঢাকা, ০২ নভেম্বর ২০২৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ সোমবার বিকেলে জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতেই গুপ্ত খুন। তাদের বিচার বিনষ্ট করতেই এই কর্মকাণ্ড চলছে দেশে। কারণ, জিয়াউর রহমান প্রথমে যুদ্ধাপরাধীদের প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন, হাতে পতাকা তুলে দিয়েছিলেন। তারপর তার স্ত্রীও (খালেদা জিয়া)তাদের জাতীয় সংসদে জায়গা দেন।’

 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশকে অস্থিতিশীল করতে ও যুদ্ধপরাধীদের রক্ষা করতে লেখক প্রকাশকদের গুপ্তহত্যা করা হচ্ছে। রাজনৈতিকভাবে পরাজিত হয়ে খালেদা জিয়া লন্ডনে বসে বিদেশি হত্যার নির্দেশ দিচ্ছেন।’ তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার আন্দোলন মানুষ পুড়িয়ে মারার আন্দোলন।

hasina4a   02.11.15বিএনপির চেয়ারপারসনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, বিদেশে গিয়ে তিনি ষড়যন্ত্র করছেন। তিনি গুপ্তহত্যায় নেমেছেন। লেখক-প্রকাশক, এমনকি বিদেশিদের হত্যা করা হচ্ছে। যখনই হত্যায় জড়িতরা ধরা পড়ছে; দেখা যাচ্ছে তারা হয় শিবির, না হয় বিএনপি। দেশে না পেরে এখন বিদেশে বসে তিনি গুপ্তহত্যা শুরু করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করেন, যখন এ দেশের সম্ভাবনা সামনের দিকে, তখনই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে বিএনপি ও তাদের সহযোগীরা।

দেশে গুপ্ত হত্যা খুন যাই করুক না কেন বাংলাদেশের মানুষকে দাবিয়ে রাখতে পারবে না কেউ এমন মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা গুপ্ত হত্যা করেছে, এদের লিংক, মুরব্বি, বড় ভাইদের খুঁজে শাস্তি দেবোই দেবো। এছাড়া যারা এসব ঘটাচ্ছে তাদেরও কোনো ছাড় নেই। আমরা যা বলি, আমরা তা করি।

hasina3   02.11.15তিনি বলেন, দেশে সব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, খুনের বিচার হবে। উন্নয়নে কেউ যদি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে তবে বাংলাদেশের মানুষ তাদের ক্ষমা করবে না। শান্তি বিনষ্ট করার জন্য শাস্তি পেতেই হবে। ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল সেই মুক্তিযুদ্ধের পর থেকেই, আর ষযড়ন্ত্র চলবে না।

বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ওনার পেয়ারে পাকিস্তানের পেয়ার তিনি আর ভুলতে পারেন না। এই জন্যই তিনি এসব করে যাচ্ছেন স্বাধীন বাংলাদেশে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাম্প্রতিক গুপ্ত হত্যাকান্ডে ও নেপথ্যে জড়িতদের খুঁজে বের করতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী এবং শান্তি ও উন্নয়নকামী জনগণের সহযোগিতা কামনা করে বলেছেন, অশুভ শক্তি প্রতিরোধে পুনরায় ঐক্যবদ্ধ হবার এখনি সময়।

hasina5   02.11.15শেখ হাসিনা বলেন, ২০১৩ ও ২০১৫ সালে সাধারণ লোকজন প্রতিরোধ করতে এগিয়ে এসেছিল বলে বোমা হামলাকারী ও অগ্নিসংযোগকারীরা যেমন সফল হতে পারেনি, তেমনি গুপ্ত হত্যাকারীদের খুঁজে বের করতে এখন সাধারণ জনগণ এগিয়ে আসবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেল হত্যা দিবস পালন উপলক্ষে আজ বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক বিশাল জনসমাবেশে ভাষণ প্রদানকালে একথা বলেন। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যন্তরে দেশের জাতীয় চার নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক গুপ্ত হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের কয়েকজন আটক হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য নেপথ্যে তাদের মূল পরিকল্পনাকারী ও বড়ভাইদের সাথে বাকি খুনিদেরও আটক করা হবে।

hasina2   02.11.15শেখ হাসিনা সাম্প্রতিক ঘটনা ও গুপ্ত হত্যাকান্ডের জন্য বিএনপি এবং তাদের শরীকদের দায়ী করে বলেন, বিএনপি নেতা খালেদা জিয়া সবসময় তার স্বামী সাবেক সামরিক স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমানের মতো হত্যার রাজনীতি করেছেন। তিনি দেশে এখন হত্যার রাজত্ব কায়েম করতে চান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক সকল হত্যাকান্ডের যুদ্ধাপরাধের বিচার ভন্ডুল করার জন্য বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তারা যুদ্ধাপরাধীদের এবং ১৯৭১ সালের খুনীদের রক্ষা করতে দেশে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে চায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ও জামায়াত দেশের স্বাধীনতা ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যতে বিশ্বাস করে না। তারা দেশকে ধ্বংস এবং বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করতে চায়। তারা বাংলাদেশের জনগণকে দরিদ্র্য, অশিক্ষিত, নিরক্ষর রাখতে চায় এবং তাদের মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত রাখতে চায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ অনেক ত্যাগের বিনিময়ে স্বাধীন হয়েছে। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি সৈন্যরা তাদেরকে দাবায়া রাখতে পারেনি। কোন ষড়যন্ত্র ও গুপ্ত হত্যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিকে ব্যাহত করতে পারবে না।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশের ভাগ্য নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের সম্পর্কে সতর্ক থাকতে জনগণের প্রতি পরামর্শ দিয়ে বলেন, বাংলাদেশের জনগণ অদম্য এবং কোন ষড়যন্ত্রের কাছে তারা মাথানত করবে না। প্রধানমন্ত্রী তাদের চক্রান্ত প্রতিহত করতে জনগণের সহযোগিতা কামনা করেন।

সম্প্রতি জাগৃতি প্রকাশনীর মালিক ফয়সল আরেফীন দীপন হত্যাকাণ্ড এবং শুদ্ধস্বরের প্রকাশক ও ব্লগার আহমেদুর রশিদ টুটুল, লেখক ও ব্লগার রণদীপম বসু ও তারেক রহিমকে কুপিয়ে জখম করার পেছনে বিএনপি জামায়াতের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার দুপুর ১টা থেকে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা দলে দলে উদ্যানে উপস্থিত হতে শুরু করেন। বিকেল সাড়ে ৩টা নাগাদ তা প্রায় জনসমুদ্রে পরিণত হয়। কেন্দ্রীয় নেতারা প্রথমে বক্তৃতা দেন।

এদিকে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান কেন্দ্রীক জনসভা হওয়ায় এর আশপাশের সকল রাস্তায় প্রচণ্ড যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে দলের কেন্দ্রীয় নেতা আমীর হোসেন আমু, বেগম মতিয়া চৌধুরী, মোহম্মদ নাসিম, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম. এ. আজিজ ও সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বক্তব্য রাখেন।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

বিকল্পের সন্ধানে কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপনে দেরি হচ্ছে : ওবায়দুল কাদের

ঢাকা, ১৩ মে ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী সরকারি চাকরিতে কোটা …

স্যাটেলাইট মহাকাশে ঘোরায় বিএনপির মাথাও ঘুরছে : মোহাম্মদ নাসিম

ফেনী, ১৩ মে ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণ হওয়ায় বিএনপির মাথাও ঘুরছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents