৮:৩৭ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই , ২০১৯
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / জরুরী সংবাদ / চাঁদা আদায় ও অপরাজনীতির প্রতিবাদে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত ঐক্য পরিষদ-এর সংবাদ সম্মেলন

চাঁদা আদায় ও অপরাজনীতির প্রতিবাদে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত ঐক্য পরিষদ-এর সংবাদ সম্মেলন

ঢাকা, ০৯ নভেম্বর, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী ১২ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের নামে মতিন, সামাদ, বখতিয়ার, মাসুদ গংরা গত কয়েক মাসে চাঁদা আদায় করা কয়েক কোটি টাকা জায়েজ করতে এবং রাজনৈতিক কুটকৌশল সফল করতে এ সমাবেশ ডেকেছে। এই সংঘবদ্ধ চক্র আগামী জাতীয় নির্বাচনে জামাত বিএনপির সাথে জোটবদ্ধ হওয়ার গোপন লক্ষ্য সামনে রেখে বিএনপিকে এবং সরকারকে শো-ডাউন দেখাতে এ কৌশলী কর্মসূচীর মাধ্যমে চাঁদার টাকা ভাগ-বাটোয়ারা করার ব্যবস্থা করেছে। চাঁদার অধিকাংশ টাকা জামাত ও বিএনপির।

সমাবেশের আহ্বায়ক মাওলানা আব্দুল মতিনের নেতৃত্বে চট্টগ্রামের স উ ম সামাদ, মাওলানা বখতিয়ার ও ঢাকার মাওলানা মাসুদ হোসেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের নাম ভাঙ্গিয়ে প্রকাশ্যে সুন্নী আর গোপনে (রাতে) জামাত-বিএনপির সাথে সখ্যতা রেখে ইসলামের নামে কিছু দরবার ও খানকার পীরদের সাথে নিয়ে এ চাঁদাবাজি করেই চলছে। এদের ছদ্মবেশী অরাজনৈতিক সংগঠনের নাম আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় পরিষদ। প্রকৃত বিষয় হচ্ছে অতীতের নির্বাচনগুলোতে তারা জামায়াতের সাথে সূর মিলিয়ে নির্বাচনী জনসভায় ও ওয়াজ মাহফিলে প্রকাশ্যে বলেছিল আওয়ামী লীগকে ভোট দিলে ঈমান থাকবে না, আর আওয়ামী লীগ হচ্ছে নাস্তিকের দল। উল্লেখ্য গত ২রা আগস্ট ২০১৫ ইং তারিখে এই চক্রের এক আলোচনা সভায় বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপন, জামাত নেতা নিজামীর ভাষায় বলেছিলেন জঙ্গীবাদ বলতে কিছু নেই। জঙ্গীবাদ আওয়ামী লীগের সৃষ্টি। একথা বলে তিনি শ্রোতাদের তোপের মুখে পড়লে ঐ চক্রের সদস্য স উ ম সামাদ দাড়িয়ে শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, রিপন ভাই আমাদের অতিথি, তাকে কথা বলতে দিতে হবে, সবাই চুপ করুন।  গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আ জ ম নাছিরের বিরুদ্ধে মতিন নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে বিভিন্ন নির্বাচনী জনসভায়  সামাদ ও মতিন বক্তব্যে বলেছিলেন আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে ঈমান হারাবেন না। এছাড়াও অসংখ্য কুমন্তব্য আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মাঠে ময়দানে বক্তব্যে বলেছিলেন। ৭ আগস্ট ২০১৬ এক গোল টেবিল বৈঠকে সরকার বিরোধী কল্যান পার্টির নেতা মেজর জেনারেল অবসরপ্রাপ্ত ইবরাহীম ও আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কৃত গোলাম মাওলা রনিকে বিশেষ অতিথি করে উক্ত বৈঠকে তারা ঘোষণা করে আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের কবর রচনা করে ৫ই জানুয়ারী নির্বাচনের মাধ্যমে অবৈধ পন্থায় ক্ষমতায় এসেছে। অবিলম্বে গণতন্ত্র উদ্ধারের জন্য মধ্যবর্ত্তী নির্বাচন করার দরকার বলে তারা দাবি করে। তাদের সবচেয়ে বড় পরিচয় তারা ৭১ এর স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি। “১৯৭১ সালে আহলে সুন্নত ওয়াল জামা’আত সমন্বয় কমিটির গুরু মাওলানা শাহ আহমদ নূরানী বাংলাদেশের বিরুদ্ধে জিহাদের ডাক দিয়েছিলো। এ সম্পর্কে ‘ঘাতকের দিনলিপি’ নামক বইয়ের ২১ পৃষ্ঠায় বলা হয়:

“দেশের সংহতি সংরক্ষণে প্রেসিডেন্ট পূর্ব-পাকিস্তানে যে ব্যবস্থা নেয় তার প্রতি সমর্থন এবং দুষ্কৃতিকারী ও ভারতীয় সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে জিহাদের ডাক দেন জমিয়তে ওলামা-ই পাকিস্তানের পার্লামেন্টারি পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা শাহ আহমদ নূরানী।” সুতরাং স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় কমিটির নামে এদেরকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রোগ্রামের অনুমতি দেয়া যায় না। বরং আমাদেরকেই অনুমতি দিতে হবে।

 সুন্নী ধারার অনুসারীদের মধ্যে যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আওয়ামী মানসিকতায় উদ্ধুদ্ধ তাদেরকে ব্যবহার করতে এ চক্রটি এই কৌশলী নাম ব্যবহার করছে। এরা এই ব্যানারে পীর মাশায়েখ ও উলামাদের সম্পৃক্ত করে এই কৌশলী কর্মসুচী নিয়েছে। চাঁদাবাজি জায়েজ করতে ও রাজনৈতিক অপকৌশল সফল করতে।

মতিন, সামাদ, বখতিয়ার, মাসুদ চক্রটি আগামী ১২ নভেম্বর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যোনে সমাবেশের কর্মসুচী দিয়েছে আগামী নির্বাচনে জোটবদ্ধ হওয়ার পরিকল্পনা সামনে রেখে বেগম জিয়াকে জনসমর্থন দেখাতে এবং সরকারকে থ্র্রেট করে ব্ল্যাকমেইলিং করার উদ্দেশ্যে। বিশ্বে ইসলাম প্রচার প্রসারে হযরত খাজা গরীবে নেওয়াজ, হযরত শাহজালাল মোজারেদীসহ কোনো অলী আল্লাহগণ এক টাকা চাঁদা আদায় করার কোন প্রমাণ ইসলামের ইতিহাসে নেই। অথচ উক্ত গংরা চাঁদাবাজির নামে বাংলাদেশের লাইম লাইট পজিশনে পৌঁছেছে।

এ চক্রটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করার এখনও অনুমতি পায়নি। অথচ সমাবেশের নামে ইতিমধ্যেই কয়েক কোটি টাকা চাঁদাবাজি করে ফেলেছে। এরপূর্বেও এ চক্রটি ঢাকা ও চট্টগ্রামে বিভিন্ন সমাবেশ ও মাহফিলের নামে এভাবে চাঁদাবাজি করেছে। আবার সমাবেশ না করেও চাঁদার টাকা লুটপাট করেছে। অপরদিকে সংগঠনকে জামাত

বিএনপি জোটের পক্ষে রাখতে  বিএনপি নেতা আব্দুল্লাহ আল-নোমান, আমীর খসরু ও আসাদুজ্জামান রিপন তাদেরকে সমাবেশের জন্য অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছে বলে অভিযোগ আছে। এরা নিজেদেরকে সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে সমাবেশ ডেকেছে খালেদা জিয়াকে খুশি করার জন্য। এছাড়াও গোপনে জামাত জোটের সাথে

আঁতাতের কৌশল হিসেবে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে পারবে না এটা বুঝতে পেরে এখন সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়, সাংবাদিক সম্মেলন এবং সুন্নী জনতাদের সামনে নানান গল্প, কবিতা শুনিয়ে হামদ, নাত গেয়ে চাঁদাবাজি করার টাকা হালাল করার কুটকৌশল নিয়ে কাজ করছে। তাই এদের ভন্ডামীর বিষয়ে চাঁদা দানকারী প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিসহ দেশবাসী ও সরকারকে সজাগ থাকতে হবে।

তারা বলেন, জামাত বিএনপি জোটের সাথে জোটবদ্ধ হওয়ার এবং চাঁদাবাজির বৃহৎ ক্ষেত্র তৈরীর জন্য এদের কুটকৌশলী ফাঁদের বিষয়টি উন্মোচন করবে এবং এদের সমাবেশ প্রতিহত করবে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত ঐক্য পরিষদ।

আমরা বাংলাদেশ আহলে সুন্নাত ওয়ালা জামায়াত ঐক্য পরিষদ আগামী ১২ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে  সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে আহুত সুন্নী মহাসম্মেলনের জন্য গণপূর্ত অধিদপ্তর, ডিএমপি এবং শাহবাগ থানায় মাঠ বরাদ্দ ও অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছি, অদ্যাবধি কর্তৃপক্ষ আমাদের কিছুই জানায়নি। তবে আমাদের বিশ্বাস সরকার যদি কাউকে সম্মেলন করার জন্য অনুমতি প্রদান করে তাইলে ঐক্য পরিষদকেই অনুমতি প্রদান করবেন। ইতিমধ্যেই আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি যে, ঐ কুচক্র মহলটি সমাবেশে বহু সংখ্যক ছাত্র শিবিরের নেতাকর্মীদের সমাগম করে সরকার বিরোধী একটি তান্ডব চালানোও অসম্ভব কিছু নয়। তাই এই সমাবেশের মাঠের অনুমতি ওদেরকে নয় বরং আমাদেরকেই দিতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা আব্দুল গাফ্ফার, মুফতী মাসুম বিল্লাহ, মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ কাসেমী, হাফেজ মাওলানা আব্দুস সাত্তার, মাওলানা কাজী আব্দুল জব্বার, মুফতী মহিউদ্দিন গালেবী, মাওলানা কাজী তাজুল ইসলাম, মাওলানা আসাদুজ্জামান প্রমুখ।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

সকল ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে : রাষ্ট্রপতি

ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ দেশের শান্তি ও অগ্রগতি …

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents