১২:৩৯ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই , ২০১৯
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / আওয়ামী লীগ / ঢাকার আশপাশে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা বড় বড় স্থাপনা শিগগিরই উচ্ছেদ করা হবে : শাজাহান খান

ঢাকার আশপাশে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা বড় বড় স্থাপনা শিগগিরই উচ্ছেদ করা হবে : শাজাহান খান

ঢাকা, ১২ অক্টোবর, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, ঢাকার আশপাশে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা বড় বড় স্থাপনা শিগগিরই উচ্ছেদ করা হবে।

তিনি বলেছেন, ইতোমধ্যে এসব স্থাপনা চিহ্নিত করা হয়েছে। এগুলোর পেছনে যত বড় শক্তিই থাকুক, তাতে কাজ হবে না।খুব শিগগির সেগুলোর মাথায় আঘাত করে গুঁড়িয়ে দেয়া হবে। তা হলে আর দাঁড়াতে পারবে না।

নৌ-পরিবহনমন্ত্রী বলেন, “রাজধানী ঢাকাকে অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে রক্ষা করতে আমরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।  আমরা দুই মন্ত্রী সরেজমিনে অবৈধ স্থাপনা পরিদর্শন করেছি। এর তালিকাও তৈরি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের পরিকল্পনা অনুমোদন দিয়েছেন। এখন শুরু হবে পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পালা।আশা করছি এ বছরের মধ্যেই বড় বড় স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে।”

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “ধলেশ্বরী নদীতে একটি বড় স্থাপনা আমরা গুঁড়িয়ে দিয়েছি। এখানে প্রায় শতকোটি টাকার বিনিয়োগ ছিল। অনেক প্রভাবশালী মহল এর সঙ্গে যুক্ত ছিল। কিন্তু আমরা সফলভাবে এই অবৈধ স্থাপনা উড়িয়ে দিয়েছি। এসব কোনো ঘটনা নয়। আমরা এগিয়ে চলেছি। এগিয়ে যাব।”

শাজাহান খান বলেন, ‘ঢাকার চারপাশে যেসব নদী আছে, সেগুলো দূষণমুক্ত করারও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে আমরা একটি মহাপরিকল্পনা করছি। চলতি অর্থবছরে এই পরিকল্পনা শেষ হবে। আসছে অর্থবছরে বাজেট পেলেই সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ শুরু হবে।”

এ-সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী বলেন, “দেখুন লন্ডনের টেমস নদীকে একসময় পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছিল। সেই নদীও কিন্তু সংস্কার করা হয়েছে। দূষণমুক্ত করা হয়েছে। সুতরাং বুড়িগঙ্গাকেও দূষণমুক্ত করা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। অনেক অর্থ দরকার। আমরা আমাদের সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি।”

নৌমন্ত্রী বলেন, “আমাদের নদীগুলোও কিন্তু অনেক দখল হয়ে গেছে। বুড়িঙ্গাসহ ঢাকার আশপাশে অন্তত ৪০টি মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির নির্মাণ করা হয়েছে অবৈধভাবে। এসব আমরা কীভাবে উচ্ছেদ করব? তার পরও আমরা ইমাম, পুরোহিতদের নিয়ে বসেছি। তারা সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। আশা করছি এসবও সমাধান হবে। তবে প্রথমে আমরা ব্যক্তিমালিকানায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনার মাথায় আঘাত করব। লেজে করব না। কারণ মাথায় আঘাত করলে আর দাঁড়াতে পারবে না। এ কারণে আমরা সব অবৈধ স্থাপনার মাথায় আঘাত দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শাজাহান খান বলেন, “ঢাকার আশপাশে ২৪০ কিলোমিটার ওয়াক ওয়ে নির্মাণ দরকার। এসব হলে আর উদ্ধারকৃত জায়গা পুনর্দখল হবে না। ইতোমধ্যে ২০ কিলোমিটার জায়গায় ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। আরও ৫০ কিলোমিটার জায়গায় ওয়াকওয়ে নির্মাণ প্রক্রিয়াধীন আছে।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “নৌপথে চাঁদাবাজি বন্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আশা করছি, অচিরেই এই পথে সব ধরনের চাঁদাবাজি বন্ধ হবে।”

মন্ত্রী অনুষ্ঠানের শুরুতে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন সাংবাদিকদের কাছে।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

সকল ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে : রাষ্ট্রপতি

ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ দেশের শান্তি ও অগ্রগতি …

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents