৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ - শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / জরুরী সংবাদ / পাবনার খবর

পাবনার খবর

এস, এম, আজিজুল হক, স্টাফ রিপোর্টার-পাবনা, ২৭ অক্টোবর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম):

 

Pabna photoপাবনায় ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য
ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে কর্মশালা অনুষ্ঠিত

পাবনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ‘ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ শীর্ষক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫ (২০১৩) সালের সংশোধনীসহ এ কর্মশালার আয়োজন করে পাবনা জেলা প্রশাসন, তামাক বিরোধী নারী জোট (তাবিনাজ) ও শুচীতা সমাজ উন্নয়ন সংস্থা। ক্যাম্পেইন ফর টোবাকো ফ্রি কিডস (সিটিএফকে) সহযোগিতায় কর্মশালায় প্রধান অতিথি পাবনা জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দীন, বিশেষ অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), মুন্সি মোঃ মনিরুজ্জামান, স্থানীয় সরকার পাবনার উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুর রফিক, পাবনা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রায়হানা ইসলাম, জেলা তথ্য অফিসার মঞ্জুর ই-মওলা বক্তব্য রাখেন। আরও বক্তব্য রাখেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক আব্দুস সামাদ, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জোবায়দা খাতুন, পাবনা পৌরসভার সচিব সাইদুল ইসলাম, সিনিয়র হেল্থ এডুকেশন অফিসার আব্দুল আজিজ, সাংবাদিক হাসান আলী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন উবিনীগ সমন্বয়ক জয়নুল আবেদীন খান এবং মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন তামাক বিরোধী নারী জোটের সমন্বয়কারী সায়দা আক্তার। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শুচীতার নির্বাহী পরিচালক নাসরিন পারভীন।

কর্মশালায় বক্তাগণ ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহারে মানুষের স্বাস্থ্যের ক্ষতিকর দিক নিয়ে আলোচনা করেন এবং প্রশাসন ও বেসরকারি সংস্থার সমন্বয়ে ধূমপান বিরোধী ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা, ধোঁয়াবিহীন তামাকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের ওপর জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রস্তাব উপস্থাপন করেন। বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধিসহ বিশিষ্টজনেরা কর্মশালায় অংশ নেন।

 

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও প্রতিবেদকের বক্তব্য

Drআমি ডাঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল গত ১৫/১০/২০১৫ ইং তারিখে আপনার অনলাইন (http//:www.bangla-news24.com) পত্রিকায় প্রকাশিত মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করায় তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কারণ পারিবারিক ঐতিহ্যগতভাবে আমরা তদানিন্তন পাকিন্তান আমল থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আমার বাবা মরহুম শফী উদ্দিন মাষ্টার বেড়া আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই একজন সক্রীয় সদস্য ছিলেন।

আমার অগ্রজ বেড়া পৌরসভার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম এস. এম. আমীর আলী মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত বেড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে যুদ্ধকালীন কমান্ডার ও দীর্ঘদিন যাবৎ বেড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ছিলেন।। আমি ডাঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক ছিলাম এবং ছাত্রলীগ প্যানেল থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ছাত্রসংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হই।

এছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের একজন আজীবন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির একজন কার্যনির্বাহী সদস্য। অতএব আমাকে জামায়াতের সাথে সম্পৃক্ত করে পরিবেশিত সংবাদ শুধু মিথ্যাই নয়, সত্যের চরম অপলাপ মাত্র।

সর্বপরি যে দিন পায়না গ্রামে সমাবেশকে কেন্দ্র করে ১৪৪ ধারা জারী করা হয় সেদিন আমি আমার কর্মস্থল ঢাকায় কর্মরত ছিলাম। অতএব আপনার পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমি উক্ত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করছি।

ডাঃ মোঃ আব্দুল আউয়াল

সহযোগী অধ্যাপক

স্যার সলিমূল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা।

 

প্রতিবেদকের বক্তব্য

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করতে যেয়ে ডাক্তার আ: আওয়াল পারিবারিক অতিতের যে ইতিহাসের অবতারনা করেছেন, তা হয়তোবা সত্য। তবে সময়ের পরিক্রমায় এসবের অনেক কিছুই পাল্টে গেছে।

প্রতিবাদকারী ডাক্তার সাহেবের বড় ভাই মরহুম এস,এম, আমীর আলীকে ২০০৮ সালে উপজেলা আওয়ামীলীগের পদ থেকে বহিস্কার করা হয়। তাছাড়া ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পাবনা-১ (সাঁথিয়া-বেড়া) নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এড. সামসুল হক টুকু দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতিকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচিত হন। তার নৌকা প্রতিকের বিপক্ষে সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়ীদ তালা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করেন। এসময় তার ভাগ্নে ডা: আব্দুল আওয়াল গং সহ তাঁর আত্মীয় স্বজনও তালা প্রতিকের স্বপক্ষে নির্বাচন করে আওয়ামীলীগ থেকে অনেক দুরে সরে যান। সেই থেকে ডা: আব্দুল আওয়ালের গোটা পরিবার আওয়ামীলীগের বিপক্ষে অবস্থান নেয়।

বেড়া পৌরসভার আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তিনি ইতিমধ্যে এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেছেন। এই গণসংযোগের ধারাবাহিকতায় তিনি এলাকার বিএনপি জামাতের অনেক সদস্যদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলার জন্য ঘরোয়া বৈঠক শুরু করেছেন। পাশাপাশি অতিতের রাজনৈতিক পরিচয় কাজে লাগানোর জন্য নানা কৌশল শুরু করে দিয়েছেন।

জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আল মাহমুদ সরকার ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ আব্দুল বাতেন এই প্রতিবেদককে জানান, ডা: আব্দুল আওয়াল গংদের সাথে আওয়ামীলীগের কোন সম্পর্ক নেই। ডা: আওয়াল পেশাজীবি আওয়ামীলীগ সংগঠনের সাথে জড়িত থাকলেও স্থানীয় আওয়ামীলীগের বিপক্ষে তার অবস্থান।

সর্বপরি যে খবরটির তিনি প্রতিবাদ করেছেন-ওই খবরে কোথায়ও ডা: আব্দুল আওয়ালের অবস্থানের কথা উল্লেখ নাই।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents