৬:৩০ অপরাহ্ণ - শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / অর্থনীতি / ব্যাংকের সুদ কমায় ব্যাংক থেকে আমানত তুলে সঞ্চয়পত্র কেনার প্রবণতা বাড়ছে

ব্যাংকের সুদ কমায় ব্যাংক থেকে আমানত তুলে সঞ্চয়পত্র কেনার প্রবণতা বাড়ছে

sonchay patro    28.10.15ঢাকা, ২৮ অক্টোবর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): সুদের হার ধীরে ধীরে কমিয়ে আনছে ব্যাংক। আর এ কারণে কমছে আমানতের সুদের হারও। দুই বছর আগেও যেখানে ১২ এমনকি ১৩ শতাংশ সুদ দিন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো, তা এখন নেমে এসেছে ছয় থেকে আট শতাংশের মধ্যে। সুদের হার কমেছে সঞ্চয়পত্রেরও। তবে এখনও তা ব্যাংকের চেয়ে তিন থেকে চার শতাংশ বেশি। প্রায় সাড়ে ১১ শতাংশ সুদও পাওয়া যায় এই খাতে। তাই ব্যাংক থেকে আমানত তুলে সঞ্চয়পত্র কেনার প্রবণতা বাড়ছে।বাংলাদেশ ব্যাংকের সবশেষ হিসাব অনুযায়ী বাণিজ্যিক ব্যাংকে আমানতের গত সুদের হার ৬.৭৪। আর সঞ্চয়পত্রের সুদের হার ১১ শতাংশেরও বেশি।

বর্তমানে পাঁচ বছর মেয়াদী বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রের মেয়াদান্তে মুনাফার হার ১১.২৮ শতাংশ। তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্রের সুদের হার ১১.০৪ শতাংশ।

পারিবারিক সঞ্চয়পত্রের সুদের হার ১১.৫২ শতাংশ। আর সবচেয়ে বেশি সুদ পাওয়া যায় অবসরভোগীদের জন্য পেনশনার সঞ্চয়পত্রের। এ ক্ষেত্রে সুদের হার ১১.৭৬ শতাংশ।

প্রথম তিন মাসেই সরকারের লক্ষ্যমাত্রার ৪৪ শতাংশ সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। জাতীয় সঞ্চয়পত্র অধিদপ্তরের (এনএসডি) সুত্রে  জানা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে  (জুলাই-সেপ্টেম্বর) সঞ্চয়পত্রে নিট বিনিয়োগ হয়েছে ছয় হাজার ৬৯২ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা,  সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে এ ধারা চলতে থাকলে গত অর্থবছরের মতো এবারও অন্যান্য খাতে অপ্রত্যাশিত মন্দা দেখা দিতে পারে।

বাজেটের ব্যয় ঘাটতি মেটানোর জন্য সরকার চলতি অর্থবছরে এ খাত থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকার নিট ঋণ সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে সরকার। তবে কেনার প্রবণতা অব্যাহত থাকলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি সঞ্চয়পত্র বিক্রি হবে বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা। আর সে ক্ষেত্রে ধারণার চেয়ে বেশি সুদ দিতে হবে।

গত অর্থবছরেও এমন ধারা পরিলক্ষিত হওয়ায় মে মাসে সরকার সঞ্চয়পত্রে সুদের হার প্রায় ২ শতাংশ কমিয়ে আনে। তার পরও ২১ হাজার কোটি টাকার ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও গত অর্থবছর শেষে তা ২৮ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের এ উচ্চ ধারার ফলে বেসরকারি খাতে বিনিয়োগে ভাটা নেমে আসে। চলতি অর্থবছরেও এমন ধারা অব্যাহত থাকলে বেসরকারি খাতে গতি ফিরবে না বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ বিরুপাক্ষ পাল ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘হবেই তো। একটা খাতে বেশি সুদ ধার্য করা থাকলে কি হতে পারে তা আমরা গতবার দেখেছি। এবারও তেমনটি হবে। এতে অন্যান্য খাতগুলোতে বিনিয়োগ কমে আসে’। বেসরকারি বিনিয়োগসহ অন্যান্য খাতে গতি ফিরিয়ে আনতে সঞ্চয়পত্রে সুদের হার আরও কমানো উচিত মনে করছেন তিনি।

গত সেপ্টেম্বরে এ খাতে নিট বিনিয়োগ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৬৫ কোটি ২৪ লাখ কোটি টাকা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ হয়েছে পারিবারিক সঞ্চয়পত্রে, ৯১৮ কোটি ৮ লাখ টাকা। এই মাসে মোট বিনিয়োগ জমা পড়েছে তিন হাজার ৪৫৬ কোটি টাকা। আর এক হাজার ৩৯০ কোটি ৭৮ লাখ টাকার মূলধন ও ৮৫৮ কোটি ৩২ লাখ টাকার সুদ পরিশোধ করা হয়েছে।

তবে চলতি অর্থবছরের নবম মাসে নিট বিনিয়োগ পুর্ববর্তী ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরের সংশ্লিষ্ট মাসের তুলনায় ১৭ শতাংশ কম। সৌজন্যে ঢাকাটাইমস

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents