১:৪৯ অপরাহ্ণ - সোমবার, ১৯ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / অপরাধ / বালিয়াকান্দি চন্দনা নদীতে অবৈধ সুতিজাল ও বাঁশের বানা দিয়ে বাঁধ নির্মান করে মৎস্য নিধন

বালিয়াকান্দি চন্দনা নদীতে অবৈধ সুতিজাল ও বাঁশের বানা দিয়ে বাঁধ নির্মান করে মৎস্য নিধন

সোহেল রানা-বালিয়াকান্দি (রাজবাড়ী), ০২ অক্টোবর, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): মাছে ভাতে বাঙ্গালী প্রবাদটি প্রচলিত থাকলেও এখন আর তেমন মিঠা পানির মাছ পাওয়া যায় না। সেই দিনের সেই প্রবাদটি এখন শুধুই স্বপ্ন হয়ে গেছে আমাদের বাঙ্গালীদের কাছে। এর কারন কিছু সংখ্যক অসাধু জেলে আর কুচক্রী মহলের জন্য। তেমনি একটি ঘটনার অবতারনা হয়েছে রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ও ইসলামপুর ইউনিয়নের গাংচর পদমদী ও বাড়াদী মৃত নৈইজুদ্দিন মোল্লার ব্রীজ ঘাট এলাকায়।

মাছে ভাতে বাঙ্গালীর পরিচয় ধরে রাখতে বাংলাদেশ সরকার জেলেদের জন্য অনেক ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। কিন্তু সেই পদক্ষেপ গ্রহনের পরও কিছু জেলে সরকারের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে সরকারী নীতিমালাকে ভঙ্গ করছে। দেশের সম্পদ মৎসকে বড় করে সাধারন মানুষের কাছে পৌছে দিতে সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে রয়েছে এই মৌসুমে মাছ ধরা যাবে না। কারন এই মৌসুম টা মাছের ডিম ছাড়া বাচ্চা ফুটানো এবং সেই বাচ্চাকে খাওয়ার উপযোগী করে তোলার সময়। এখন মা মাছকে ধরে ফেললে আমরা আগামীর জন্য মাছ পাব না।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ও ইসলামপুর ইউনিয়নের গাংচর পদমদী ও বাড়াদী এলাকায় চন্দনা নদীতে সুতি জাল ও বাঁশের বানা দিয়ে বাঁধ দিয়ে অবাদে মৎস্য নিধন করছে এলাকার কিছু অসাধু জেলে। ইসলামপুর ইউনিয়নের করমচাঁদপুর গ্রামের মোঃ রফিক উদ্দিন মোল্লার ছেলে মোঃ নিলু মোল্লা, মৃত আরাব আলী শেখের ছেলে মোঃ আলাল শেখসহ এই এলাকার কিছু সার্থনেশী মহল।

সম্প্রতি উপজেলা পরিষদ ও মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ দপ্তরের অর্থায়নে নদীতে রুই, কাতলা, মৃগেলসহ বেশকিছু প্রজাতির পোনা অবমুক্ত করা হয়। এই পোনা মাছগুলোকে বড় করার দায়িত্ব আমাদের। কিন্তু কিছু সংখ্যক অসাধু জেলে এই এলাকায় সুতি জালের বাঁধ দিয়ে সেখান থেকে ভেসালের মাধ্যমে তুলে নিচ্ছে বেনুপোনা থেকে ডিমওয়ালা মা মাছগুলোকে। এতে করে ধ্বংস হ্েচ্ছ মাছের বেড়ে ওঠা। সেই সাথে আগামীর বড় মাছ পাওয়া থেকে এই এলাকার মানুষ বঞ্চিত হওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

এসময় জেলে মোঃ নিলু মোল্লার সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমাদের আগামী তিনমাস নদীতে মাছ ধরা নিষেধ করেছেন বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন আমরা নদীর পানি শুকিয়ে যাচ্ছে দেখে এখানে ৮/১০ দিন আগে থেকে মাছ ধরার কাজ শুরু করি। এখানে আমরা নৌসি, মৃগেল, কাতলা, সরপুটিসহ বেশ কিছু প্রজাতি মাছ পেয়ে থাকি। সারারাত এখানে থাকতে হয় তাই আমরা বসবাসের জন্য কোন রকমে টোং ঘর নির্মান করছি। এখানে বাঁধ দেওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা যদিও এই এলাকার বাইরে থেকে এসেছি তবে এখানকার কিছু মানুষ আমাদের সহযোগীতা করছে। আমরা তাদের সঙ্গে থেকেই চন্দনা নদীতে বাঁধ দিয়ে মাছ ধরার কাজ শুরু করেছি। তবে এখন যদি আপনারা বলেন আমরা চলে যাব।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents