৬:০৬ অপরাহ্ণ - বুধবার, ১৪ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / রাজনীতি / আওয়ামী লীগ / বঙ্গবন্ধুর হত্যার পেছনে আন্তর্জাতিক চক্রান্তে বাংলাদেশের মূল হোতা ছিলেন জিয়াউর রহমান : হানিফ

বঙ্গবন্ধুর হত্যার পেছনে আন্তর্জাতিক চক্রান্তে বাংলাদেশের মূল হোতা ছিলেন জিয়াউর রহমান : হানিফ

hanif  1  19.10.15ঢাকা, ২০ আগষ্ট, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ শনিবার কাজী বশির মিলনায়তনে (মহানগর নাট্যমঞ্চ) জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে তরিকত ফেডারেশন আয়োজিত আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যার পেছনে আন্তর্জাতিক চক্রান্তে বাংলাদেশের মূল হোতা ছিলেন জিয়াউর রহমান। এজন্য তিনি জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার দাবি করেছেন।

হানিফ বলেন,‘১৯৭৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সামরিক বাহিনীর একটি কনফারেন্সে গিয়ে জিয়াউর রহমান পাকিস্তানি গোয়েন্দাদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার কক্ষে তিন ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক করেছেন। যে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে আমরা যুদ্ধ করেছি, যারা আমাদের লাখ লাখ মানুষ হত্যা করেছে তাদের গোয়েন্দা বাহিনীর সঙ্গে কিসের মিটিং। তখন কী বৈঠক করেছিলেন গোপনে? আজ জাতির কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পেছনে আন্তর্জাতির চক্রান্তে বাংলাদেশের মূল হোতা হিসেবে কাজ করেছেন জিয়াউর রহমান।’

হানিফ বলেন,‘তাই আমরা দাবি জানিয়েছি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পেছনে কারা কারা ছিল তদন্ত কমিশনের মাধ্যমে তাদের চিহ্নিত করে খোঁজে বের করা হোক এবং এই খুনি জিয়াউর রহমানসহ অন্যদের মরণোত্তর বিচার করা হোক।’

মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ‘১৯৭১ সালে যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে আমরা স্বাধীনতা এনেছিলাম তারা আমাদের এই স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি। পাকিস্তান ও তৎকালীন পশ্চিমা মিত্ররা কখনোই আমাদের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি। তারাই চক্রান্ত করেছিল। যেকোনো মূল্যে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল। সেই চক্রান্তের ফল ছিল ১৯৭১ সালের ১৫ আগস্ট। সেই ঘাতকের বিচার হয়েছে, বিচারের রায় হয়েছে। অনেকের রায় কার্যকর হয়েছে। অনেকে বিদেশে পালিয়ে আছে। আমরা ওইসব দেশকে অনুরোধ জানিয়েছি, খুনিদের দেশে ফিরিয়ে দেয়া হোক। তাদের রায় কার্যকর করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করবো।’

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছিল তাদের বিচারের আওতায় আনা হয়েছে। কিন্তু যারা চক্রান্ত করেছিল এই হত্যাকাণ্ডের তাদের এখনো চিহ্নিত করে বিচার করা হয়নি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পেছনে আন্তর্জাতিক যে চক্র ছিল তাদের মধ্যে বাংলাদেশে ভূমিকা রেখেছিল সেটা হচ্ছে খুনি জিয়াউর রহমান। তিনি সামরিক বাহিনীর প্রধান হিসেবে সমস্ত কলকাঠি নেড়েছিলেন।’

খন্দকার মোশতাকের একার পক্ষে এত বড় ঘটনা ঘটানো সম্ভব ছিল না উল্লেখ করে হানিফ বলেন, ‘মীরজাফর মোশতাক এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে যতটা চক্রান্ত করেছিল তার থেকে বেশি চক্রান্ত ছিল খুনি জিয়ার। মোশতাকের এই ক্ষমতা ছিল না। সামরিক বাহিনীকে ওর্গানাইজ করে বঙ্গবন্ধুর মতো এতো বড় নেতাকে হত্যা করার ক্ষমতা তার ছিল না। সেই ক্ষমতা ছিল জিয়াউর রহমানের। সামরিক বাহিনীর প্রধান হিসেবে সেই সুযোগ জিয়ার ছিল আর এই সুযোগেই তিনি চক্রান্ত করেছেন। সত্য কখনোই চাপা থাকে না।’

তরিকত ফেডারেশনকে ধন্যবাদ জানিয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের জাতির পিতা। তিনি সমগ্র জাতির সমগ্র দেশের। এই জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে গোটা দেশবাসী। বঙ্গবন্ধু সার্বজনীন। আর এটারই বড় প্রমাণ হলো তরিকত ফেডারেশনের এই আয়োজন।’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘খালেদা জিয়া ১৫ আগস্ট বিকৃত জন্মদিন পালন করে বঙ্গবন্ধুকে ছোট করতে চেয়েছে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে ছোট করা যাবে না। কারণ তিনি সার্বজনীন , আজকে তাকে নিয়ে দেশে গবেষণা হচ্ছে। তিনি দার্শনিকে পরিণত হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘জিয়াউর রহমান, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এরাও বঙ্গবন্ধুকে ছোট করতে চেয়েছিল, কিন্তু পারেনি। জিয়া বঙ্গবন্ধুর হত্যার সঙ্গে জড়িত এবং তার খুনিদের বিভিন্নভাবে পুরস্কৃত করেছে। এরশাদও বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিভিন্নভাবে পুরস্কৃত করেছেন। তাদের ধারাবাহিকতায় খালেদা জিয়াও বিকৃত জন্মদিন পালন করে বঙ্গবন্ধুকে ছোট করতে ছেয়েছিলেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে ছোট করা যাবে না।’

১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন না করার প্রসঙ্গ টেনে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘খালেদা জিয়া তুমি মানুষ হিসেবে ব্যর্থ। তুমি তোমার জন্মদিন নির্ধারণ করতে পারো নাই। কোথায় কার সঙ্গে জন্মদিন পালন করবে তাতে মানুষের কিছু যায় আসে না। তোমার সঙ্গে দেশের মানুষ নেই। তুমি রাজনীতিতে থেকে পরিত্যক্ত হয়েছো।’

তরিকত ফেড়ারেশনের মহাসচিব এম এ আউয়াল বলেন,‘যতদিন খালেদা জিয়া রাজনীতিতে ততদিন ধর্ম, মনবতা অনিরাপদ’ বাংলাদেশে যতদিন খালেদা জিয়া রাজনীতিতে থাকবে ততদিন ধর্ম, মানবতা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কোনটাই নিরাপদে থাকবে না। ইসলামের দোহাই দিয়ে মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। ইসলামকে ব্যবহার করছে তারা। ’

তিনি বলেন, ‘আজকে সবকিছুই সম্ভব হয়েছে খালেদা জিয়া কারণেই। তিনি জঙ্গিদের মাথায় হাত না রাখতেন তাহলে দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান হতো না। বাংলাদেশের চেহারা আজ এমন হতো না।’

বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরী সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ চৌধুরী, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য আমিনুল ইসলাম আমিনসহ তরিকত ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents