৮:০৮ অপরাহ্ণ - রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / গুলশান হামলা : নর্থ-সাউথের উপ-উপাচার্যসহ ৪জন ৮ দিনের রিমান্ডে

গুলশান হামলা : নর্থ-সাউথের উপ-উপাচার্যসহ ৪জন ৮ দিনের রিমান্ডে

pro_vc-north-south   17.7.16ঢাকা, ১৭ জুলাই, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার ঘটনায় নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. গিয়াস উদ্দিন আহসানসহ চারজন সন্দিগ্ধ আসামি হিসেবে ফৌজদারী কার্যবিধির ৫৪ ধারায় আট দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। দশ দিন করে রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে রবিবার ঢাকা মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট মো. তসরুজ্জামান এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের ইন্সপেক্টর হুমায়ুন কবির আসামিদের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে হাজির করেন।

রিমান্ডকৃত অপর আসামিরা হলেন, ড. গিয়াস উদ্দিনের ভাগনে আলম চৌধুরী এবং জঙ্গিদের ভাড়া করা বাড়ির ব্যবস্থাপক মাহবুবুর রহমান তুহিন ও রাজধানীর শেওড়াপাড়ার জঙ্গিদের ভাড়া বাড়ির মালিক মো. নুরুল ইসলাম।

রিমান্ড আবেদনে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু এবং প্রসিকিউশন পুলিশের সহকারী কমিশনার মিরাস উদ্দিন বলেন, গত ১ জুলাই রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে হামলা চালায় জঙ্গিরা। ওই হামলায় ১৭ বিদেশি নাগরিক ও তিন বাংলাদেশিসহ ২০ জন নিহত হয়। এছাড়া হামলায় নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তাও। আহত হন ৩০ পুলিশ সদস্য। ওই ঘটনায় হামলাকারী জঙ্গিরা ড. গিয়াস উদ্দিনের বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ৬ নম্বর সড়ক, ব্লক-ই, টেনামেন্ট-৩-এর ফ্ল্যাট এ/৬ এ এবং শেওড়াপাড়ার নুরুল ইসলামের বাসা ভাড়া নেয়। হামলার দিন পর্যন্ত তারা ওই বাসায় অবস্থান করেছিলেন। হামলাকারীদের বাসা ভাড়া দিলেও নিয়ম অনুযায়ী তাদের সম্পর্কে পুলিশের কাছে কোনো তথ্য দেয়নি তারা। যেহেতু হামলাকারী হামলার দিন পর্যন্ত উক্ত বাড়িগুলোয় অবস্থান করছিলেন তাই ওই বাড়িগুলোতে অবস্থান করে তারা হামলার পরিকল্পনা করতে পারেন। এছাড়া হামলাকারীদের বাসা ভাড়া দিয়ে আসামিরা গোপন করায় তারাও এই মামলার সঙ্গে থাকতে পারে মর্মে ধারণা করা হচ্ছে। তাই আসামিদের এই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের প্রয়োজন।

আসামি গিয়াস উদ্দিনের পক্ষে অ্যাডভোকেট আরফান উদ্দিন খান এবং নুরুল ইসলামের পক্ষে অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিনের আবেদনে বলেন, আসামি গিয়াস উদ্দিনের ওই বাড়ির মালিক হলেও দেখা শোনার যাবতীয় দায়িত্ব ছিল আসামি আলম চৌধুরী এবং মাহবুবুর রহমান তুহিনের ওপর। তাই হামলাকারীদের সম্পর্কে তার কোনো ধারণাই নেই। তিনি পেশায় একজন শিক্ষক, শিক্ষকতাই তার ধ্যান-জ্ঞান। অন্যদিকে আসামি নুরুল ইসলামও একজন হাইস্কুল শিক্ষক। তিনি কোনো তথ্য গোপন করেননি।

প্রসঙ্গত, হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে হামলার পর গত ৪ জুলাই রাতে গুলশান থানার এসআই রিপন কুমার দাস বাদী হয়ে সন্ত্রাস দমন আইনে গুলশান থানায় একটি মামলা করেন। পরে মামলার তদন্তভার দেয়া হয় কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটকে।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

বিকল্পের সন্ধানে কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপনে দেরি হচ্ছে : ওবায়দুল কাদের

ঢাকা, ১৩ মে ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী সরকারি চাকরিতে কোটা …

স্যাটেলাইট মহাকাশে ঘোরায় বিএনপির মাথাও ঘুরছে : মোহাম্মদ নাসিম

ফেনী, ১৩ মে ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণ হওয়ায় বিএনপির মাথাও ঘুরছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents