৫:০৮ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর , ২০১৯
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / জরুরী সংবাদ / রাজশাহী নগরীর পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাইনবোর্ড হঠাৎ গায়েব

রাজশাহী নগরীর পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাইনবোর্ড হঠাৎ গায়েব

rajshahi pice school     17.7.16রাজশাহী, ১৭ জুলাই, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্র ও সড়কের পাশে দেয়া সাইনবোর্ড ঠিক থাকলেও রাতারাতি তুলে ফেলা হয়েছে রাজশাহী নগরীর পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাইনবোর্ড। শুধু তাই নয়, শিক্ষার্থীদের বহন করা ভ্যান গাড়িতে লেখা ওই স্কুল অ্যান্ড কলেজের নামও মুছে দেয়া হয়েছে। এতে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েছেন।

বিতর্কিত বক্তা জাকির নায়েকের পীস টিভির সম্প্রচার বন্ধের পর দেশের পিস স্কুলসমূহের বিষয়ে সরকারের নজরদারির পর এ কাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে মনে করছেন অভিভাবকরা।

রোববার সকালে সরেজমিনে নগরীর তেরখাদিয়া এলাকায় গাজী ভবনে দেখা যায়, মূল ভবনের পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের যে বড় সাইনবোর্ডটি ছিল তা নামিয়ে ফেলা হয়েছে। পাশাপাশি নগরীর বিভিন্ন জায়গায় তাদের যেসব সাইনবোর্ড লাগানো ছিল সেগুলো উঠিয়ে ফেলা হয়েছে। তাদের শিক্ষার্থী বহনের যে ভ্যান গাড়িগুলো ছিলো সেগুলো থেকেও পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের নাম মুছে ফেলা হয়েছে। তবে এখনো স্কুলের লোকেশন বোর্ড ও শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্র আগের মতোই রয়েছে।

সকাল ১০টার দিকে গাজী ভবনের সামনে গিয়ে দেখা যায়, ভবনে পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের যে সাইন বোর্ড ছিল তা নেই। ভবনটিতে শুধু গ্যালাক্সি মেডিকেল অ্যসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুলের সাইনবোর্ড ঝুলছে। তবে, ভবন থেকে সাইনবোর্ড সরানো হলেও শিশু শিক্ষার্র্থীদের দেখা গেছে। ওইসব শিশু শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্র, ব্যাগ ও ড্রেসে পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজের ব্যাচ লাগানো ছিল।

এদিকে হঠাৎ করে সাইনবোর্ড উঠে যাওয়ায় অনেক অভিভাবক ভাবনায় পড়ে গেছেন। তাদের মনে নানান প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক জানান, সকালে সন্তানকে রাখতে এসে সাইনবোর্ড না থাকার বিষয়টি তারা লক্ষ্য করেছেন। এ নিয়ে তারা সন্তানদের লেখাপড়া নিয়ে রীতিমতো দুশ্চিন্তায় পড়েছেন বলে জানান। স্কুলটি আদৌ থাকবে কিনা তা নিয়েও ভাবনায় পড়েছেন অভিভাবকরা।

অভিভাবকদের অনেকেই জানিয়েছেন, নাম মুছে ফেলার বিষয়টি জানার পরে তারা পিস স্কুল অ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টি জানতে চেয়েছেন। তবে, তারা কোনো সঠিক উত্তর দিতে পারেননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্থানীয় ব্যক্তি জানান, রাতারাতি তারা এ নাম পরিবর্তন করেছেন। তবে, কি জন্য তারা নাম মুছে ফেলেছে সে বিষয়ে তারা কিছুই বলতে পারবেন না।

জামায়াতে ইসলামীর আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতা ও রাজনৈতিক আদর্শে পরিচালিত হচ্ছে- এমন অভিযোগ ওঠায় দেশের ছয় জেলায় পরিচালিত ২৭টি পিস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ নজরদারিতে আনা হচ্ছে। গত ৭ এপ্রিল এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। এসব স্কুলের পরিচালনা পর্ষদে সরকারি দলের কারা কারা আছেন তাদের বিষয়েও খোঁজখবর নিতে বলা হয়েছে। এসব কারণেই কর্তৃপক্ষ নিজেদের বাঁচাতে এমন নাম মুছে ফেলেছে বলে ধারণা করছেন অভিভাবকরা।

গত ৭ এপ্রিল মন্ত্রিসভা কমিটির আলোচনায় বলা হয়, ‘পিস’ শব্দটি ব্যবহার করে ভিন্ন ভিন্ন নামে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এ ধরনের শতাধিক স্কুল পরিচালিত হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের অনুমোদনের বাইরে জামায়াতের দলীয় আদর্শের অনুকূল পাঠ্যবই পড়ানো হয় এসব স্কুলে। এসব স্কুলের পরিচালনা পর্ষদে রয়েছেন জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।

আবার কোনো কোনো স্কুল পরিচালনা পর্ষদে চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকরাও রয়েছেন। মন্ত্রিসভা কমিটির আলোচনার পর পিস স্কুলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জামায়াত-শিবিরের নেতা ও জড়িত সরকারি কর্মকর্তাদের ওপর নজরদারি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়।

এছাড়া স্কুলের আয়ের উৎস ও ব্যয় খতিয়ে দেখতেও বলা হয়েছে। স্থানীয় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

এর আগে গত ১৩ মার্চ পিস স্কুল সম্পর্কে একটি বিশেষ প্রতিবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে। ওই প্রতিবেদন নিয়ে আলোচনার সময় এসব সিদ্ধান্ত হয়। সৌজন্যে ঢাকাটাইমস

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

যথাযত মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বজলুর রহমানের ৪র্থ মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদকারী, …

সকল ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে : রাষ্ট্রপতি

ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ দেশের শান্তি ও অগ্রগতি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents