৩:০৪ পূর্বাহ্ণ - শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / অর্থনীতি / বিড়ি ও সিগারেটের কর বৈষম্য মেনে নেয়া যায় না : এক দেশে দুই নীতি থাকা উচিত নয় : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

বিড়ি ও সিগারেটের কর বৈষম্য মেনে নেয়া যায় না : এক দেশে দুই নীতি থাকা উচিত নয় : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

akm mozammel haq 19.6.16ঢাকা, ১৯ জুন, ২০১৬ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ রবিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে গবেষণা ও উন্নয়ন কালেকটিভ (আরডিসি) আয়োজিত ‘বিড়ি শ্রমিকের জীবন সংগ্রাম: রাজস্বনীতি ও জাতীয় বাজেট’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ধূমপানের পক্ষে কেউ নেই। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী বাংলাদেশ তামাকমুক্ত হবে, সে লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। কিন্তু বিড়ি ও সিগারেটের কর বৈষম্য মেনে নেয়া যায় না। এক দেশে দুই নীতি থাকা উচিত নয়।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, সিগারেটে ট্যাক্স কম বাড়িয়ে বিড়ির ওপর ট্যাক্স বাড়ানো উচিত নয়। বৈষম্যমূলক নীতি আমাদের স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী। গরিব মানুষের ওপর জুলুম করা ঠিক হবে না। এর ফলে লাখ লাখ শ্রমিক এক সঙ্গে বেকার হয়ে পড়বে, এতে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়বে। বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দেশের যে দরিদ্রতা হ্রাস পেয়েছে, তা আবার বেড়ে যাবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, তামাকজাত দ্রব্য স্বাস্থ্য ও পরিবেশ ও খাদ্য নিরাপত্তার জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এই বিড়ি শিল্পের যারা শ্রমিক তাদের জন্য বিকল্প কাজের ব্যবস্থা করতে হবে। শিল্প কলকারখানা বৃদ্ধি করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে। এজন্য নতুন উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিয়ে কলকারখানা স্থাপন করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, যত দিন বিড়ি শ্রমিকদের জন্য বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা না করা হয়, তত দিন করারোপে বৈষম্য না করে বিড়ির সিগারেটে সমানভাবে কর বাড়ানোর তাগিদ দেন মন্ত্রী।

গোলটেবিল বৈঠকে অধ্যাপক মেসবাহ কামাল বলেন, আমরা চাই বাংলাদেশ তামাকমুক্ত হোক। কিন্ত কর বৈষম্য থাকলে তা সম্ভব হবে না। সব ধরনের ধূমপান উপকরণের ব্যাপারে সরকারের রাজস্বনীতি অভিন্ন হওয়া উচিত। ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হলে বিড়িশিল্পে কর্মরত শ্রমিকদের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটাতে হবে। তাদের জন্য হয় বিকল্প কাজের ব্যবস্থা করতে হবে, না হয় মাসিক ভাতার ব্যবস্থা করতে হবে।

গবেষণা ও উন্নয়ন কালেকটিভের চেয়ারপারসন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মেসবাহ কামালের সভাপতিত্বে গোলটেবিল আলোচনায় বক্তব্য দেন, গবেষণা ও উন্নয়ন কালেকটিভের সাধারণ সম্পাদক মিজ. জান্নাত-এ-ফেরদৌসী, বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এম কে বাঙ্গালী, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুর রহমান, কারিগর বিড়ি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি প্রণব দেবনাথ প্রমুখ।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওমরাহ পালন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার রাতে এখানে পবিত্র …

জনগণ ছেড়ে বিদেশিদের কাছে কেন : ঐক্যফ্রন্টকে ওবায়দুল কাদের

গাজীপুর, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents