১০:৪০ পূর্বাহ্ণ - বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর , ২০১৮
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / সারা দেশের খবর / নবাবগঞ্জে বনের জমি দখলের ঘটনায় ছাত্রদের বিদ্যালয়ে যেতে বাধা, ক্লাশ চলছে মসজিদে

নবাবগঞ্জে বনের জমি দখলের ঘটনায় ছাত্রদের বিদ্যালয়ে যেতে বাধা, ক্লাশ চলছে মসজিদে

Dinajpur School-1আজাদ জয়- দিনাজপুর, ০৬ অক্টোবর ২০১৫ (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ ৯নং কুশদহ ইউনিয়নে বনের জমি দখল করে গাছ রোপনের ঘটনায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহতের ঘটনায় বাদী পক্ষের লোকজনের হুমকিতে কুষ্টিপাড়ার দু’শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে ক্লাশ করতে যেতেস পারছে না। অবশেষে প্রধান শিক্ষক মোঃ মাসুদ রহমান ও এলাকার সচেতন মহলের সহাতায় ক্লাশ চলছে মসজিদে।

আজ ০৬ অক্টোবর সরেজমিনে গেলে এলাকাবাসীর পক্ষে আঃ মতিন(৫০), রবিউল, হাজেরা বেগম তারা ক্ষোভের সাথে অভিযোগ করেন- বনের জমি দখলের ঘটনায় পার্শ্ববর্তী মাহাতাব পাড়া গ্রামের ১ জন নিহত হওয়ার কারণে বাদী পক্ষের লোকজন তাদের কুষ্টিয়া পাড়ার গ্রামের ছাত্র/ছাত্রীদের বিদ্যালয়ে যেতে দিচ্ছে বাঁধা। এর কারণে শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কোমলমতি শিশুরা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান- বাদী পক্ষের লোকজন বিদ্যালয়ে আসতে বাঁধা দিচ্ছে না। কুষ্টিয়াপাড়ার অভিভাবকেরা ভয়ে বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না। সামনে বাচ্চাদের পরীক্ষা। বিষয়টি ভেবেই কুষ্টিয়াপাড়া’র জামে মসজিদ ক্যাম্পাস চত্ত্বরেই টিন শেডের নীচে ক্লাশ নিচ্ছি। আফতাবগঞ্জ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক ও হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমান জানান- পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। শিক্ষার্থীরা যাতে বিদ্যালয়ে যেতে পারে এ বিষয়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে অভিভাবক সমাবেশের ব্যবস্থা করবো। এ বিষয়ে গত ৫ই অক্টোবর নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ আইন শৃংখলা সমন্বয় সভায় বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) এস.এম মনিরুজ্জামান আল-মাসউদ জানান- বিদ্যালয়ে যেতে যদি কেউ বাঁধা সৃষ্টি করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

১০ ই সেপ্টেম্বর বন বিভাগের জমি দখল করে গাছ রোপন করার সময় দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহতসহ ২০ জন গুরুত্বর আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। মধ্যপাড়া সদর বিট কর্মকর্তা মোঃ আবুল কাশেম জানান- কুশদহ ইউনিয়নের গিলাঝুকি এলাকার ২০ বিঘা বন বিভাগের জমি দীর্ঘদিন থেকে নবাবগঞ্জ উপজেলার গিলাঝুকি গ্রামের লোকজন দখল করে। ওই জমিতে বন বিভাগের পক্ষ থেকে গাছ রোপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এরই প্রেক্ষিতে বৃস্পতিবার সকালে পাশ্ববর্তী পাবর্তীপুর উপজেলার মাকই পাড়া ও মাহাতাব পাড়ার ২০ জনের একটি দল বন বিভাগের জমিতে গাছ রোপন করতে যায়। এসময় গিলাঝুকি গ্রামের লোকজনদের সাথে সংঘর্ষ বেধে যায়। এ ঘটনায় উভয় পক্ষে ২০ জন গুরুত্বর আহত হয়ে রমেক হাসপাতালে ও স্থানীয় নবাবগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়। আফতাবগঞ্জ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান জানান- সংঘর্ষের ঘটনায় রংপুরে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় উপজেলার মাহাতব পাড়া গ্রামের সাখাওয়াত হোসেনের পুত্র আমিনুল ইসলাম বাবু(৫০) গুরুত্ব জখম হয়ে রমেক হাসাপাতালে মারা যায়। এদিকে নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে গুরুত্ব আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন- গিলাঝুকি গ্রামের ওমর আলীর পুত্র শাহীনুর ইসলাম(৩৭), জেকের আলীর পুত্র আঃ সাত্তার(৪৪), ছমির আলীর পুত্র দুলু মিয়া(৩৮), আদম আলীর পুত্র আনসার আলী(২৮), মিজানুর রহমানের পুত্র মুঞ্জু মিয়া(৩৮), আঃ মতিনের পুত্র সুমন(২৬)সহ ২০জন । এবিষয়ে ৯নং কুশদহ ইউপি চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আজিজুল হক জানান- বিবাদীয় জমি বন বিভাগের। ১০ বছর পূর্বে ওই জমিতে বাগান ছিল। এখন গিলাঝুকি এলাকার ভূমিহীন লোকজন দখল করে চলতি মৌসুমে মাসকালাই বপন করে ভোগ দখলে আছে। এদিকে পার্শ্ববর্তী পার্বতীপুর উপজেলার মাকইপাড়া ও মাহাতাব পাড়ার লোকজন বন বিভাগের হয়ে ওই জমিতে গাছ রোপন করতে আসলে দু’পক্ষের সংঘর্ষ বাধে। এতেই প্রতিপক্ষের আঘাতে ১ জন নিহত হয়। এ ঘটনায় পাল্টাপাল্টি দু’টি মামলা দায়ের হয়েছে। একটি হত্যা মামলা অন্যটি বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের মামলা। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জানান- হত্যা মামলায় ৭ জন আসামীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অন্যরা য়া পড়ছে...

Loading...



চেক

মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে : মাহবুব-উল আলম হানিফ

কুষ্টিয়া, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ শুক্রবার বেলা ১২টায় কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই রোডে …

রাজবাড়ী বালিয়াকান্দীর নলিয়া জামালপুর স্টেশনের অদুরে ট্রেনের ধাক্কায় নছিমনের তিন যাত্রী নিহত

রাজবাড়ী, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং (বাংলা-নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম): আজ শুক্রবার দুপরে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর স্টেশনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My title page contents